ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

আমার যত মজার ইলেকট্রনিক্সের সার্কিট! [পর্ব-২১] :: খুব সহজে একটি ইন্ডিকেটর বানিয়ে নিন !

আমার যত মজার ইলেকট্রনিক্সের সার্কিট!

সবাই কেমন আছেন ? আজ আমি ছোট একটা বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো ! এটি কমবেশি সবাই জানেন ! কিন্তু যারা কেবল ইলেক্ট্রোনিক্স শুরু করতে যাচ্ছে তাদের জন্য এটি একটু মজার হবে বলে আমি মনে করছি ! তার আগে জেনে নিই ইন্ডিকেটর বলতে কি বুঝায় ? বিদ্যুতের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতি নির্ধারনের জন্য যেই আলো ব্যবহার করা হয় সেটিই ইন্ডিকেটর ! যেমন ইলেক্ট্রোনিক্সের কোন সামগ্রী অন করলে দেখবেন সেখানে লাল নীল বা সবুজ রং এর আলো জ্বলে যা মোটামুটি ভাল ফোকাস দেয় !

ADs by Techtunes ADs

আবার দেখবেন বেড সুইচ বন্ধ করলে ওই সুইচেও আলো জ্বলে ! কিন্তু এর ফোকাস ইলেক্ট্রোনিক্সের সামগ্রীতে যেই আলো ব্যবহার করা হয়েছে তার মত এত তিব্র না ! খুব কম ! আমার কথা তিনিই ভাল বুঝবেন যে নাকি এসি 220 ভোল্টে LED বাল্ব দিয়ে ইন্ডিকেটর বানাতে চেয়েছেন এবং বানিয়েছেন কিন্তু আলো বেশি ফোকাস পায়নি ! এরকম কেন হয় ? করন LED বাল্ব ডিসি ভোল্টে চলে ! ইলেক্ট্রোনিক্সের সমগ্রীতে যেই ইন্ডিকেটর ব্যবহার করা হয় ওখানে ডিসি ভোল্টেজ প্রবেশ করানো আছে তাই LED বাল্বটি পূর্ণ ভাবে জ্বলে এবং বেশি ফোকাস দেয় ! কিন্তু LED বাল্বের সাথে যখন রেজিস্ট্যান্স লগিয়ে এসি 220 ভোল্টেজে প্রবেশ করানো হয় তখন বাল্বটি ডিসি ভোল্টেজ পায় না ফলে পূর্ণ ভাবে জ্বলতে পারে না ! তবে আপনি যদি এই এসি কে ডিসি তে রূপান্তিত করেন তাহলে কিন্তু LED ভালভাবে জ্বলবে এবং ফোকাস দিবে ! এর জন্য নিচের কম্পোনেন্টগুলো সংগ্রহ করুন !

  • লাল , নীল , সবুজ বা হলুদ রং এর যেকোন একটি LED !
  • যেকোন মানের রেকটিফায়ার ডায়োড একটি !
  • 22 কিলোওহমের হাফ ওয়াটের রেজিস্ট্যান্স একটি !

প্রথমে যেখানে ইন্ডিকেটর ব্যবহার করতে চান সেখান LED বাল্ব সেট করুন ! এবার চিত্রের মত করে সংযোগ দিন !

TTC Tunes

আপনি ইচ্ছা করলে আমার মত সুইচ বোডেও সেট করতে পারবেন !

TTC Tunes

তবে রেজিস্ট্যান্স একটু গমর হয়ে কালো হতে পারে এতে তেমন কোন সমস্যা হবে না !বুঝতে অসুবিধে হলে নিম্বাজ ইয়াহু ও ফেজবুক থেকে rubelttc দিয়ে আমাকে অ্যাড দিন! সবাই ভালো থাকবেন !

এই টিউনটি ফেজবুকে

শেয়ার করুন !

ADs by Techtunes ADs

ADs by Techtunes ADs
Level 2

আমি রুবেল টিটিসি। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 10 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 98 টি টিউন ও 416 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 12 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

অজানাকে জানতে আর জানাতে ভালোবাসি!


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ভাই আপনার টিউন গুলা এত সুন্দর হয় কেন ??

Vaiya jotil tune hoica.Beshas korun,ami sobsomoy upnar eletronics beshaiok tune er opekhai thaki.

Bhaia, apnar tune ta khub valo laglo, but voy lagchilo banaite, ami parchi……….. ki moza…..

ভাই জটিল হয়েছে..আমি আপনার এফ,এম টিউনটি পড়ে তা বানাতে চেয়েছিলাম কিন্তু পারিনি ।ভাই যদি আমাকে একটা এফ,এম বানিয়ে দেন তবে চির কৃতজ্ঞ থাকবো।(কি বা কত লাগবে জানাবেন) প্লিজ……

    @hasan675542: bro fm transmiter age kuriar a sell kortam. But onek loss khai c. Tai ekhon r quriar a dai na. Amar kase 30m theke 1.3km range er fm transmiter ase. Jetai nite chan, amar ekhane ase nia jete hobe. Bistarito jante call din 8801716218847

ভাল টিউন টিউনের জন্য ধন্যবাদ,ছবি গুলু মনে হয় মোবাই দিয়ে তোলা হয়েছে তাই একটু ঘোলা আরো পরিষ্কার হইলে ভাল দেখাত।

Level 0

Diode না দিলেও একই রকম আলো হবার কথা। কেননা আপনি একটি Diode ব্যবহার করেছেন। তাতে Half wave rectification হয়েছে। আর LED(Light Emitting Diode) নিজেও একটি Diode তাই অতিরিক্ত Diode টি না দিলেও Half wave rectification এর মাধ্যমে সে জ্বলত। বিস্তারিত বলি, আমরা সবাই জানি আমরা যে বিদ্যুৎ ব্যবহার করি তার frequency হল 50Hz এবং ২২৯ ভোল্ট AC অর্থাৎ সে সেকেন্ডে ৫০ বার একবার positive দিকে গড়ে ২২৯ ভোল্ট হয় আবার negative দিকে গড়ে ২২৯ ভোল্ট হয়। তাহলে সেকেন্ডে ১০০ বার বিদ্যুতের গড় ভোল্টেজ হয় ২২৯ । সেকেন্ডে শুধু ৫০ বার positive বা শুধু ৫০ বার negative Cycle কে একমুখী(rectify) করা হলে বলা হবে Half wave rectification. আর সেকেন্ডে ১০০ বার একমুখী(rectify) করা হলে বলা হবে full wave rectification. এখন LED শুধুমাত্র Forward biased হলেই জ্বলবে। আবার আপনার Diode টিও শুধুমাত্র Forward biased হলেই ON হবে। তাহলে কি দাঁড়ালো LED এবং Diode দুইজনই একসাথে সেকেন্ডে ৫০ বার ON এবং ৫০ বার OFF থাকছে। Diode খুলে ফেলে সরাসরি লাগালেও LED সেকেন্ডে ৫০ বার ON এবং ৫০ বার OFF থাকবে। Diode লাগানো না লাগানো সমান কথা। তবে আপনি যদি Bridge Rectifier ব্যবহার করেন তাহলে LED সেকেন্ডে ১০০ বার জ্বলবে। তখন বেশি আলো পাবেন। Bridge Rectifier এ 4টি Diode এমন সন্নিবেশে যুক্ত থাকে যে তারা পুরো Wave কেই rectify করতে পারে। আশা করি বুঝতে পেরেছেন। চেষ্টা করেছি খুব সহজ ভাষায় বলতে। ধন্যবাদ।

    @Faisal: ভাই প্রথমে আপনাকে ধন্যবাদ জানাই কষ্ট করে বিস্তারিত লেখার জন্য ! আপনি যা লিখেছেন সবই ঠিক আছে কিন্তু একটু সমস্যা আছে ! যেহেতু ওই সার্কিটে রেকটিফায়ার ব্যবহার করে ডিসিতে কনভার্ট হয়েছে সেহেতু 220 ভোল্ট থেকে 150 ভোল্টে নেমে এসেছে ( আপনি AVO মিটার মেপে দেখতে পারেন .তবে ডিসি স্কেলে সিলেক্ট করবেন) ! আর এই ডিসিত ভোল্টেজের উপর ভিত্তি করেই 22k রেজিস্ট্যান ব্যবহার করা হয়েছে ! এক্ষেত্রে শুধু 22k রেজিস্ট্যান ব্যবহার করলে রেজিস্ট্যান্স পুরে যাবে ! আর বেশি মানের লাগালে আলো কম হবে ! আবার রেকটিফায়ার কারেন্টের মান নির্দিষ্ট রেখে ভোল্টেজ বৃদ্ধি করে ( আপনি AVO মিটার মেপে দেখতে পারেন .তবে AC স্কেলে সিলেক্ট করবেন) ! যেহেতু কারেন্টের মান নির্দিষ্ট তাই বেশি ভোল্টেজে এটি 22k রেজিস্ট্যান্স দিয়ে ভাল আলো দিবে ! রেকটিফায়ার ব্রিজ কানেকশন করে সংযোগ দিলে সবচেয়ে ভাল হয় ! কিন্তু এতে খরচ একটু বেশি হবে ! আর যারা নতুন তারা হয়তো এটা বানাতে পারবে না ! এই কানেকশনটি চার্জার টর্স লাইটের ভিতরে পাবেন ! সেখানে রেকটিফায়ার ব্রিজ করা আছে কিন্তু একটি রেকটিফায়ার ব্যবহার করে সিগন্যাল LED জলানো হয়েছে ! আশা করি বুঝতে পেরেছেন ! তারপরেও বলছি , আপনি যেভাবেই LED জালান না কেন ভাল ভাবে জ্বললেই হবে !

      Level 0

      আপনি বলেছেন ২২০ ভোল্ট কে rectify করার কারনে ডিসি ১৫০ ভোল্ট হয়েছে। কিন্তু কিভাবে হল!! আপনার দেয়া সার্কিটটি হাফ ওয়েভ রেকটিফাই করেছে। হাফ ওয়েভ রেকটিফাই করলে ডিসি Voltage কত হবে চলুন বের করি। আমি যদিও আগের কমেন্টে ২২৯ ভোল্ট লিখেছিলাম। আমার লিখা উচিত ছিল ২৩০ ভোল্ট । কারন বিভিন্ন লোডের কারনে ড্রপ না করলে সেটাই পাওয়ার কথা। আমি ধরে নিয়েছিলাম আপনি অন্তত ২২৯ ভোল্ট রিসিভ করছেন। যাই হোক আপনার কথা অনুসারে ২২০ ভোল্ট দিয়েই হিসাব করবো। এখন কথা হচ্ছে এই ২২০ ভোল্টেজ হল বিদ্যুতের গড় ভোল্টেজ বা RMS Voltage। এখানে RMS মানে হইলো Root Mean Square. RMS কেন বের করা হয়, না জানলে আমাকে বলেন আমি বিস্তারিত জানাবো। ২২০ ভোল্ট যদি গড় ভোল্টেজ হয় তাহলে ম্যক্সিমাম বা পিক ভোল্টেজ কত। পিক ভোল্টেজ হইলো 220×1.414= 311.08 ভোল্ট। আমাদের বিদ্যুৎ আসলে সেকেন্ডে ৫০বার ভোল্টেজ 0 থেকে শুরু করে বাড়তে বাড়তে একবার পজেটিভ দিকে 311.08 ভোল্ট হয় আবার কমতে কমতে জিরো হয়ে নেগেটিভ দিকে -311.08 ভোল্ট হয়। হাফ ওয়েভ বলতে আমরা শুধু পজেটিভ অংশ বা শুধু নেগেটিভ অংশ কে বুঝব। হাফ ওয়েভ রেক্টিফিকেসন করলে ডিসি ভোল্টেজ হবে 311.08/3.14159= 99.09 volt আমি এখানে পিক ভোল্টেজ কে পাই(pie) দিয়ে ভাগ করেছি। তাহলে আপনার ডিসি ভোল্টেজ পাওয়ার কথা ছিল ১০০ ভোল্টের কাছাকাছি। আমি ডিসি ভোল্ট মিটার দিয়ে মেপে দেখেছি এরকমই আসে। আমি ধরে নিচ্ছি আপনি সাধারণ standard একটি LED লাগিয়েছেন যাদের ফুল ব্রাইটনেস দিতে সাধারন্ত 10-20mA কারেন্ট লাগে। এইসব LED এর Forward Voltage drop হইলো ২ ভোল্ট। এখন পিক 311 ভোল্ট থেকে ২ ভোল্ট বাদ দিলে থাকে 309 ভোল্ট। আমি ধরে নিচ্ছি আপনার LED টি 15mA এর। এখন 15mA কারেন্টে 309 ভোল্ট ড্রপ করাতে হবে একটি resistor দিয়ে। তাহলে resistor এর মান কত হবে! resistor এর মান হবে, 309/(15/1000)= 20600 ohm অর্থাৎ 20.6k ohm এই ক্ষেত্রে আপনি ২২ কিলো ওহম এর Resistor লাগাতে পারেন। এখানে ২০ কে ১০০০ দিয়ে ভাগ দেয়া হয়েছে মিলি আম্পিয়ার থেকে আম্পিয়ারে নেয়ার জন্য। এখন হিসাব করা যাক কত ওয়াটের resistor লাগাবেন। আমরা জানি পাওয়ার হচ্ছে কারেন্ট এবং ভোল্টেজের গুনফল। তাহলে 311x(15/1000)= 4.66 Wattআপনি 5 ওয়াটের resistor লাগাতে পারেন। 5 ওয়াটের resistor লাগালেও resistor টি গরম হবে। কারন 5 ওয়াটের সমান হিট এনার্জি সে নিঃসারণ করবে। Resistor এর পরিবর্তে আপনি Capacitor ও ব্যবহার করতে পারেন। Capacitor গরম হবে খুব কম। সেক্ষেত্রে Capacitor কেও 22k ohm এর সমান বাধা দিতে হবে। Capacitor এর মান হবে, 1/2×3.14159x50x22000 = 144nf আপনি 144nf তো পাবেন না আপনাকে 150nF 400V এর capacitor লাগাতে হবে। LED এর Peak Inverse Voltage হল মাত্র ৫ ভোল্ট। তাই LED টিকে দীর্ঘায়ু করার জন্য একটা ডায়োড LED এর প্যরালালে উল্টো Polarity তে লাগানো উচিত। রেকটিফায়ার কারেন্ট ঠিক রেখে ভোল্টেজ বাড়িয়ে দেয় আপনাকে কে শিখাইছে। ধরেন আমি ডায়োডের ইনপুটে ১ আম্পিয়ার ১০ভোল্ট দিলাম। তাহলে পাওয়ার ইনপুট হল ১০ ওয়াট এখন আপনার কথা অনুসারে যদি ১০ ভোল্ট বেড়ে ১২ ভোল্ট হয় তাহলে পাওয়ার আউটপুট হবে ১২ ওয়াট। আপনার তো ইনপুটের চেয়ে আউটপুট বেশি হয়ে গেল।

        Level 0

        দুঃখিত আমার সামান্য ভুল হয়েছে Resistor ওয়াট হিসাব করতে। ২২k ohm এর Resistor টি যেহেতু ১০০ ভোল্টে কাজ করছে তাই আপনাকে 100x(15/1000) = 1.5 watt এর চেয়ে বড় Resistor ব্যবহার করতে হবে। আপনি যেহেতু হাফ ওয়াটের Resistor লাগিয়েছেন তাই Resistorটি কালো হয়ে গেছে।

        @Faisal: bro apnake agei bola c avo meter dia volt dekhte. Ekta kotha, amio apnar moto onek tottho jani. But kisu kisu time ase j ogula r kaj a khate na.

          Level 0

          AVO meter মানে জানেন।

          Level 0

          আপনার তথ্য ভাণ্ডার মনে হচ্ছে সমৃদ্ধ কিন্তু অনেক কিছুই ভুল তথ্যে, এর জন্য মিলে না।

        Level 0

        @Faisal: Beshi janen to nije post likhun, ar sekhan e bidda jahir korun vai, apnar theory amader dorkar nai, amader field output dorkar, deher netarao bohut theory dise bt output nai, ami led jalate peresi etai boro kotha, apnar halfwave dia amar kaj nai, be practical, manuhke char dite sikhun, kutub sajte jaben na

        @Faisal: Apnar bekkha khub sundor. Apnar ai gothon mulok reply theke onek kichu sikhar ase. Vai apni Electronics niye Tune koren na keno? Amio Apnar moto. Amar Multimeter “Sanwa YX360TRF (MADE IN JAPAN) & Clamp Meter HIOKI 3280-10 (MADE IN JAPAN)” Ar ha Boy ar Bastobotar moddhe differents 19-20. 10-20 noy akmot (Tobe writter valo hote hobe. Oneke na jeneo boi likhe). Ar ami sortcut circuit theke jotil circuit gula beshi pochondo kori karon aki jinish joltil circuit a make kora hole performance onek nikhut & long lasting hoi. Example Japan Vs China er ninmomaner circuit. Tobe China er valo mane jinish k valo lage jodio maader dese ader valo mal gula khub kom ase.

        Apnara janen tar por o রুবেল টিটিসি & Faisal vai er uddese bolbo dhonnobad kosto kore tune & gothon mulok montobbo korar jonno.Sate a o bolbo aki kaj kore amon jinish bivhinno vabe bivhinno mane toiri kora jai. Jemon Ager use kora Cadnica Red colour er japani torch light er circuit Vs akhon kar 100tk er kachakachi damer LED torch circuit a onek differents, duitar dui quality, 2 dam, 2 tai torch hisebe alo dei, 2 tar circuit e jar jar dik theke sothik ai kokom ar ki. Apni Ami O amplifire make kori Sony(je kono akta nam dhorlam aro Brand ache) o amplifire make kore tai bole Amader make kora ta Gune mane kokhonoi Sony er dhare kache asbena, circuit a o akash patal differents airokom r ki. Amra sobgula sikhbo jar jeita valo mone hoi oivhabe practically use korborbo. Karo sathe rag korbona, Kosto nibona. Karon ai sokol circuit gula amar kono na kono jaiga theke je jar jar moto kore sikhe thaki ba idea nei. Dhonnobad.

    @Faisal: ভাই আপনি তো আমার ভুল ধরেছিলেন একটা রেকটিফায়ার ব্যবহার করার জন্য ! নিচের চিত্রে দেখুন তো এখানে কয়টা রেকটিফায়ার ডায়োড ব্যবহার করা হয়েছে !

    আমি না হয় মুর্খ মানুষ ! তাহলে কি এরাও মুর্খ ?

      Level 0

      জি রুবেল ভাই, দেখলাম। ছাপার অক্ষরে লেখা দেখলেই যেমন সেটা সত্য হয়না তেমনি ইন্টারনেট এর সব লেখাই বিশ্বাসযোগ্য না। নির্ভরযোগ্য সাইট থেকে রেফারেন্স দিতে হয়। আপনি কিন্তু কমেন্ট পড়েননি। কমেন্ট পড়ুন, তাহলে বুঝতে পারবেন। আসলে আমি ভেবেছিলাম আপনার সাথে বিষয়টি মিটমাট হয়ে গেছে। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে আপনি ভুলতে পারেন নাই। যদিও ৫৭টা কমেন্টের মধ্যে ৫০টাতেই আমাকে পচানো হয়েছে। রাগ ত আমার করা উচিত ছিল তাইনা।

        @Faisal: ভাই একটা কথা , আমি কিন্তু আপনার উপর রাগ করে কোন কমেন্ট করিনি ! শুধু আপনার কাছে বিষয়টা শেয়ার করেছি মাত্র ! অনেক তো হল , আর না ! এ বিষয়ে আর কোন কথা বারাতে চাই না ! তবে একটা কথা বলতে চাই , আমার মতে , আপনি থিউরী অনুযায়ী কাজ করেন আর থিউরী কে পরিবর্তন করেই কাজ করেন , যে ভাবেই করেন না কেন , ওটা যদি ভাল রেজাল্ট দেয় এবং বেশি দিন চলে, তাহলে সেটাই হবে সঠিক থিউরী ! আমার সাথে যারা একমত তারা হ্যা বলেন !

      Level 0

      প্রথম কমেন্টটাই আমি হুবহু তুলে ধরলাম,
      The circuit puts a unnecessary DC component in the mains circuit, which all designers should avoid at all costs, eventhough the current is small IT WILL DISTORT THE WAVEFORM.
      Its better to put diode antiparallel to the LED and only a current limiting resistor is all u need..the capacitor will not have any significant effect, since the mains ripple at 50HZ is invisible to eye persistance

        Level 0

        আমি আর এই বিষয় নিয়ে কোনও আলচনায় যাবনা। আমি চাইনা টেকটিউনসের পরিবেশ নষ্ট হোক। ধন্যবাদ। আল্লাহ আপনার মঙ্গল করুন। ভাল থাকুন।

টিউনের জননে ধন্যবাদ।
আমি ২২০ ভোল্ট থেকে ১২ ভোল্ট এর একটি LED টিউব লাইট বানাতে চাই। যেটাতে ২০-৩০ টা LED থাকবে।এর জননে আমাকে কি করতে হবে যদি দয়া জানাতেন তাহলে খুব উপকৃত হতাম।

লাল , নীল , সবুজ বা হলুদ বাদে সাদা রংয়ের LEDতে কাজ হবে তো

আমি ২২০ ভোল্ট থেকে ১২ ভোল্ট এর একটি LED টিউব লাইট বানাতে চাই। যেটাতে ২০-৩০ টা LED থাকবে।এর জননে আমাকে কি করতে হবে যদি দয়া জানাতেন তাহলে খুব উপকৃত হতাম।
ভাই এতে বাল্ব কাটে বেশি আমি নিজে তিনবার বানিয়ে ৯০টি বাল্ব নষ্ট করেছি । এক কথায় কাজ হবে কিন্তু বাল্ব দীর্ঘস্থায়ী হয়না । দু এক দিনের মধ্যে বাল্বগুলো সব ফিউজ হয় । তবে আপনি 9Vএর ট্রান্সফরমার দিয়ে কাজটি করতে পারেন বাল্ব ফিউজ হবেনা সহজে । আপনাকে যা করতে হবে তা হলে ৩০টি বাল্বকে দুভাগ করে ১৫টি ১৫টি সিরিজে সংযোগ দিতে হবে ।

@Faisal: Bro ami kintu Gazipur Ansar and VDP TTC te 3year teacher hisabe nijukto c lam. Okhane ami Refrigeration, endrustrial electric and electronics ei tinta subject poraitan. Je gulo Tottho jani egulo vul kina jani na, tobe tottho kinu ami nije banai na. Boi thaka pai c. Jai hok bro apnar kase hoito ami tuchchho. But je tuku boli jene boli. Nijer mongora kono kotha boli na. AVO miter hoite se ekta maltimiter jar maddhome A=ampear V=volt r O=ohom porimap kora jai.

    Level 0

    কমেন্ট লেখার সময় যাকে উদ্দেশ্য করে লিখছেন তার কমেন্টের নিচের Reply এর মাধ্যমে লিখবেন তাহলে সে আপনার কমেন্টের একটা কপি মেইল আকারে পাবে। আপনি আমাকে উদ্দেশ্য করে লিখেছেন কিন্তু আমি কোন নোটিফিকেশন পাইনি।
    AVO মিটার আসলে একটা ব্র্যান্ড এর নাম। একটি ব্রিটিশ কোম্পানির মাল্টিমিটার দিয়ে Ampere, Volt, Ohm মাপা যেত তাই তারা তাদের মাল্টিমিটারটির নাম রেখেছিল AVO মিটার। যদিও ২০০৮ সালের পর থেকে আর কোন AVO মিটার তৈরি হয়নি। আমি ভাই কিভাবে পাব এই মিটার। আমি তো SANWA Cd800a নামের জাপানীজ ডিজিটাল মাল্টিমিটার ব্যবহার করি। অফিসে Fluke এর Calibrated মিটারের সাথে মিলিয়ে দেখেছি আমার মিটার ঠিক আছে। আপনি যখন কোন জায়গার ভোল্টেজ মাপেন তখন নিশ্চয়ই আপনার মাল্টিমিটার এর Ampere, Ohm মাপার অংশগুলো নিষ্ক্রিয় থাকে। তাহলে ঐ অবস্থায় আপনার মাল্টিমিটারটিকে আমি ভোল্ট মিটার বলতে পারি তাইনা। আমি সেটাই শুধু বলেছি। আর তাছাড়া শুধু ভোল্ট মিটার দিয়ে ভোল্ট মাপলে দোষ কি!! বাংলাদেশের প্রায় বেশিরভাগ স্কুল কলেজে মাল্টিমিটার ব্যবহার না করে শুধু ভোল্টমিটার বা শুধু অ্যাম্পিয়ার মিটার ব্যবহার করা হয় ছাত্রদের বোঝানোর জন্য।
    AVO মিটার সম্পর্কে জানতে নিচের লিঙ্ক থেকে ঘুরে আসুন।
    http://en.wikipedia.org/wiki/Avometer
    এবার আসি আপনার তথ্য ভাণ্ডার বিষয়ে। আমার একজন টেকনিশিয়ান ভোকেশনাল থেকে কিছুদিন আগে সম্ভবত ইন্টারমিডিয়েট সমমানের একটা পরীক্ষা দিয়েছিল। পরীক্ষার মধ্যে সে বই খাতা নিয়ে অফিসে চলে আসত। আমি একদিন তার বইগুলো নেড়ে চেড়ে দেখলাম। বইগুলো দেখে আমার একই সাথে মেজাজ এবং মন দুটোই খারাপ হয়ে গেল। তখন আমি বুঝতে পেরেছিলাম আমার টেকনিশিয়ান সহ তার মত ভোকেশনাল এ পড়ুয়া ছাত্রদের অবস্থা এত খারাপ হয় কেন। আমার ধারনা, ইচ্ছা করে যোগ্যতা সম্পন্ন লোককে দিয়ে বইগুলো লেখানো হয় না। তবে এদের মধ্যে অসম্ভব কিছু মেধাবী ছাত্রও আছে। আসলে মেধাবীদের যেখানেই রাখেন না কেন তাদেরকে আটকে রাখা যায় না। কারন তারা সঠিক বেঠিকের পার্থক্য করতে পারে। আপনার প্রতিভা আছে কিন্তু আপনার সমস্যা হল আপনি নিজেকে জ্ঞ্যানী মনে করেন। এর জন্য আপনার মাঝে অহঙ্কার কাজ করে।
    টেকটিউনসে আপনি অনেক গুলো টিউন করেছেন। আপনার ভক্তের সংখ্যাও কম না। অথচ এতগুলো মানুষকে যদি আপনি ভুল শেখান তাহলে কি ব্যাপারটা ভালো হল। আপনাকে জানতে আমি আপনার টিউন পড়া শুরু করলাম। প্রথম টিউনের একেবারে প্রথমেই আপনি একটা ভুল শিখিয়েছেন। এরপর আমি আর কোন টিউন পড়ার আগ্রহ পেলাম না। কারন এত কিছুর পর আমি অন্তত আপনাকে বুঝতে পারতেছি আপনার সমস্যা কোথায়। বিস্তারিত বলি। আপনার লেখাটি হুবহু তুলে দিলাম,

    “নেট এ সার্চ দিয়ে আপনি অনেক সার্কিট পাবেন, কিন্তু বেশিরভাগেরই প্রায় কাজ করে না! আর কাজ করলেও কম্পোনেন্টের যে মান দেওয়া আছে সরাসরি সেই মানের কম্পোনেন্ট আপনি দোকানে কিনতে পাবেন না, যেমন ধরুণ, একটি পি.এফ এর মান দেওয়া আছে 0.001mF. এই মানের পি.এফ আপনি কোন দোকানে খুজে পাবেন না. কিন্তু যদি বলেন 102 নাম্বারের পি.এফ দেন তাহলে যে কোন ইলেকট্রনিক্সের দোকানে পাবেন”

    এখানে আপনি লিখেছেন, “পি.এফ এর মান দেওয়া আছে 0.001mF” কিন্তু আমরা জানি Capacitor এর Capacitance এর Unit বা একক হল ফ্যারাডে সংক্ষেপে লেখা হয় F দিয়ে। 1F আসলে অনেক বড় Capacitance । ১কে ১০০০ দিয়ে ভাগ করলে যে সংখ্যাটি হয় তাকে আমরা বলি মিলি(m), তাহলে ১মিলি ফ্যারাডে(1mF) সমান হবে 1/1000 = 0.001F আবার ১ কে ১০০০০০০ দিয়ে ভাগ করলে হয় মাইক্রো(μ) তাহলে ১ মাইক্রো ফ্যারাডে সমান হবে 1/1000000 = 0.000001F এভাবে ১ ন্যানো ফ্যরাডে সমান 0.000000001 এবং ১ পিকো ফ্যারাডে সমান 0.000000000001F হবে। তাহলে বুঝতেই পারছেন 1pF কত ছোট Capacitance। আর 1mF এর চেয়ে 1pF ১০০০০০০০০০ গুন ছোট। আপনি capacitor এর মান লিখেছেন 0.001mF যার মানে হচ্ছে 0.001 মিলি ফ্যারাডে অথচ কোড লিখেছেন ১০২ যার মান বের করলে হয়, (আমি সহজভাবে মান বের করে দেখাচ্ছি) 10×10^2 pF = 10x10x10pF = 1000pF =1000/1000000μF=.001μF তাহলে আমরা কোনটাকে সঠিক ধরব। এছাড়াও এই সব ছোট Capacitor এর নাম পিএফ নয়। এদের গায়ে যে কোড দেয়া থাকে তার একক বা ইউনিট হল pF বা পিকো ফ্যারাডে। আপনি খেয়াল করলে দেখবেন আমি হিসাব করেছি pF দিয়ে। আশা করি আপনার ভুলটি দ্রুত ঠিক করে দিবেন। আমি অনেক অবুঝ লোককে বলতে শুনেছি পিএফ মানে হল পাওয়ার ফিল্টার। আশা করি আপনি অন্তত পিএফ কে পাওয়ার ফিল্টার মনে করেন না।
    বাংলাদেশের প্রায় সব ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভারসিটিতে ইলেকট্রনিক্স পড়ানোর শুরুতে Electronic Devices and Circuit Theory নামে একটা বই পড়ানো হয়। আপনি নীলক্ষেত থেকে বইটি যোগাড় করে পড়বেন আপনার সব কমতি দূর হয়ে যাবে। ভালো থাকবেন। আপনাকে ধন্যবাদ।

      @Faisal: bro ami to apnake reply diai comment kore c. Bro ami analog avo o digital klipon miter use kori . Sob gulatei dcv o acv, omoho o miliampear and sudhu klipon metere ampear er bivinno scell ase. Sob gulai sokrio. Bro ami nijeke ohongkari mone kori na. Apni jodi eta mone kore tahole ota apnar vul dharona. Tobe eta tik j ekta masus sobar kase fevorete hoi na. Ami sei sob circuit r tottho niai tune kori jegula kaj kore. Jodi vul tottho ditam tahole kosto kore mobile dia tune kortam na. R ami apnake kokhonoi boli ni j ami besi jani. Ami bole c j ami ja jani tar bastobota test kora dekha c. Bro apni jei capacitor code er kotha bolesen eta niya ami onek agei tune kore c. Amar electronics er teutorial gula dekhun.

      Level 0

      @Faisal: Hmmmm, khub bujte persi apnar somporke….jotota somoy comment e lagaisen totota somy e boro ekta post diye amader upokar korte parten, vai, bt tuner ar mader sobar loss koralen…

      Level 0

      @Faisal: , @রুবেল টিটিসি: আপনাদের বিতর্ক মন্দ নয়। ভাইদ্বয় ডায়োডের কাজটা কি? সে কি এসি কে ডিসিতে পরিণত করে? হ্যা করে। আমি বলি না। কারণ টা হল ডায়োডের কাজ ফরোয়াড বায়াসে শুধু মাত্র পজিটিভ সাইড কে আউটপুটে নেওয়া তার মানে এই না সেটা ডিসি। ডিসি হওয়ার শর্ত সেখানে কোন অল্টারনেশন থাকা চলবেনা। এখানে থাকবে তাই ডায়োডের মাধমে যে ডিসি তৈরী হয় সেটা ভেজাল বা পালসেটিং ডিসি। ফিল্টারিং না করা পর্যন্ত সেটা পিওর ডিসি হবেনা। একারনে ১৫০ বা ১০০ ভোল্ট । ধরে নিলাম ১৫০ ভোল্ট তবে এটা পালসেটিং ডিসি। যদি ১০০ ভোল্ট হয় তবে পিওর ডিসি। আশা করি আপনাদের বিতর্ক এর অবসান হবে।

        @mahmud.tsc: bro r bitorko korte chai na. Apnara ja bhalo bojhen and kaj kore sofolota pan setai r8.

        Level 0

        এই লেখা শ্রদ্ধেয় মাহমুদ ভাই এর উদ্দেশ্যে,
        আমি ডায়োডকে দেখি ননরিটার্ন ভাল্ব হিসেবে। সে শুধু সামনেই যেতে দিবে। উল্টো আসতে দিবে না। খাতায় একটা ডায়োডের সিম্বল আকেন। যার বাম পাশে রাখবেন পজেটিভ প্রান্ত। এখন খেয়াল করে দেখুন। পজেটিভ প্রান্তে একটা তীর চিহ্ন আকা আছে যেটি নির্দেশ করছে আপনি পজেটিভ থেকে নেগেটিভ দিকে যেতে পারবেন। এখন নেগেটিভ দিক থেকে পজেটিভ দিকে আসার চেষ্টা করেন, দেখবেন একটা সোজা দাগ দিয়ে আপনার যাতায়াত ব্লক করা আছে। এই সিম্বল আসলে মেকানিক্যল ভাল্ব এর সিম্বল এর মত আকা হয়েছে। একটা মেকানিক্যল ননরিটার্ন ভাল্ব যেমন ইন এর প্রেশার বেশি হলে যেতে দেয় এবং ইন এর চেয়ে আউটের প্রেশার বেশি হলে বন্ধ হয়ে যায়। সেইরকম ডায়োডও হাই ভোল্টেজ থেকে লো ভোল্টেজ এর কারেন্ট ফ্লো করতে দেয়। AC DC বোঝার ক্ষমতা ডায়োডের নাই।
        আপনার এই কথাটা বুঝলাম না,
        “ধরে নিলাম ১৫০ ভোল্ট তবে এটা পালসেটিং ডিসি। যদি ১০০ ভোল্ট হয় তবে পিওর ডিসি।”

        ১৫০ ভোল্ট এর পালসেটিং ডিসি কে ফিল্টার করলে ভোল্টেজ বাড়ার কথা। কারন ১৫০ ভোল্ট হচ্ছে গড় ভোল্টেজ, যার পিক আরও বেশি। ফিলটার করলে আমরা তো পিকটাই পাব তাইনা।
        ভাই একটা ব্যপার বুঝতেছিনা সবার থিওরির প্রতি এত রাগ কেন।

          Level 0

          @Faisal: সরি বস আমি আসলে থিউরী এবং প্যাকটিক্যাল দুটোতেই দুর্বল। আমার কাছে যেটা মনে হয় সেটাই বলি সঠিক হতেও পারে নাও পারে। অবশ্যই ডায়োড মেকানিক্যল ননরিটার্ন ভাল্ব এর মত। “AC DC বোঝার ক্ষমতা ডায়োডের নাই” একথা বোধ হয় আমি বলিনি। আমি বলতে চেয়েছি ফরোয়াড বায়াসে পজিটিভ হাফ সাইকেল আউটপুটে নেয় যা শুন্য হতে সর্বচ্চ আবার শুণ্য। এখানে শুন্য আছে সবোচ্চ আছে। ডিসিতে কি তাই থাকে। আমি অসিলোসকোপে দেখেছি পালসেটিং ডিসিকে পিওর করলে চড়ু ভেংগে সর্বচ্চ থেকে নীচের দিকে নেমে আসে তাতে মনে হয় এসি থেকে ডিসিতে গেলে ভোল্টজ কমে।”ফিলটার করলে আমরা তো পিকটাই পাব তাইনা” পেতে পারেন তবে কিন্তু সেটা সাইকেলের কত সময়ের জন্য । আমার যেটা মনে হয় অল্টারনেটিং কে পিওর ডিসিতে পরিণত করলে সবোর্চ্চ ভোল্টেজ এবং শুণ্য ভোল্টেজ এই দুইটা মিনিমাইজ একটা গড় ভোল্টেজ পাওয়ার কথা।যেমনটি পাহাড় কেটে সমতল করা।কিন্তু আমরা বাস্তুবে পাইনা কারণ ফিল্টার হিসাবে ব্যবহার করি ক্যাপাসিটর । এটা আমার কথা, থিউরীতে কি বলে আমার জানা নাই। তবে আপনাদের কারও উপর কথা বলার সাহস আমার নাই এবং আমি সব সময় বিশ্বাস করি প্যাকটিক্যালী অনেক কিছু মিলানো সম্ভব না কিন্তু থিউরীটিক্যালী মিলান সম্ভব। তাই থিউরী আগে প্যাকটিক্যাল পরে।

Level 0

আমি এখন পর্যন্তও কোন টিউন করিনি। কিন্তু টেকটিউন্স দেখি অনেক দিন থেকে সাথে রুবেল ভাইয়ের টিউন গুলোও। কারন আমিও এই কাজ গুলো অনেক করেছি। তাই কিছুটা জানি। আজ রুবেল ভাই র ফইসাল ভাইয়ের তর্ক বিতর্ক দেখে মনে হল একটা কমেন্ট করি। তবে কমেন্ট এ আমি কারো পক্ষ নিচ্ছি না। আপনা্রা দুজনই অনেক জানেন ইলেক্ট্রনিস্ক বিষয়ে। তবে আমি আমার অভিজ্ঞতা থেকেই বলছি রুবেল ভাই যা বলছেন তা practical আর ফইসাল ভাই যা বলছেন তা theoretical। Theoretical সবসময় বাস্তবতার সাথে মিল হয়ে না।

Akmot @Munna vai.

Level 0

@ রুবেল ভাই এবং @ ফয়সাল ভাই আপনাদের বিতর্ক যে যেভাবেই গ্রহন করুকনা কেন আমার কাছে তথ্য বহুল মনে হয়েছে।
@ মুন্নাভাই থিউরিক্যাল আর প্যাকটিক্যাল ১৯/২০ হলেও হতে পারে ১০/২০ হয়না।
@ masud rana ভাই, বিতর্ক কে ছোট করে দেখা ঠিক না কারণ বিতর্কে অনেক তথ্য বেড়িয়ে আসে। কমেন্ট অর্থ, ধন্যবাদ, সুন্দর হয়েছে, প্রসংশা নয় বরং আমার কাছে মনে হয় এটা একটা ক্ষেত্র যেখানে আপনি সংশোধিত হতে পারেন বা প্রশ্নের মাধম্যে অজানা জানতে পারেন । সবাই সব জানেনা বা পরিপূর্ণনা আর যা জানে সেখানে ভুল থাকতে পারে। টিউন করতে গেলে অনেক সময় ভুল হতে পারে সেটা সংশোধন করা বা স্বীকার করা অপমানের নয় ।

ফয়সাল ভাই কমেন্টে যা লিখেছে তা টিউনের কোন অংশ কম নয়।
রুবেল ভাই না রেগে আর একটু তথ্য বহুল বিতর্ক করলে খুব মজা পেতাম।

@ সরি আমি আপনাদের সাথে বিতর্কে যেতে চাইনা। @

    Level 0

    উপরে রিপ্লাই অপসন বন্ধ হয়ে গেল তাই এখানে লিখছি। খুব পারফেক্টলি ফিলটার করতে পারলে পিকের কাছাকাছিই থাকবে এবং খুব কম ripple থাকবে। কিন্তু বাস্তবে এত ভালো ফিল্টার বানাতে যত বড় capacitor লাগবে তাতে করে শুধু ঝামেলা বাড়বে। Wikipedia এর দুইটা লাইন তুলে দিলাম, “To limit ripple to a specified value the required capacitor size is proportional to the load current and inversely proportional to the supply frequency and the number of output peaks of the rectifier per input cycle”. আর ফিল্টার না করলে আপনি গড় পাবেন। যেটি আসলে পাহাড় কেটে সমান করার মত। হাফ ওয়েভের বেলায় যা Vpeak/Pi এবং ফুল ওয়েভের বেলায় 2Vpeak/pi
    http://en.wikipedia.org/wiki/Rectifier
    আমি কিন্তু বলছিনা আমি শতভাগ সঠিক।
    আমার কাছে একটা সফটওয়্যার আছে যেটা দিয়ে আপনি আপনার পিসি কে Oscilloscope হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি চাইলে আমি দিতে পারি। যদিও পিক টু পিক ২ ভোল্টের বেশি দেয়া ঠিক না। আমি ৬ভোল্ট পর্যন্ত দিয়ে দেখছি। কোনও সমস্যা হয় না। আপনি ভোল্টেজ ডিভাইডার ব্যবহার করে ভোল্টেজ কমিয়ে দেখতে পারেন। সময় পাচ্ছিনা। সময় পেলে একটা attenuator circuit বানানোর ইচ্ছা আছে।

Level 0

Bro, Plz Help me. Kew ki bolben porupori Mechanical sikhar jonno ki ki boi porte hobe. Orthat je boi gulo porle ami Mechanical somporke valo darona pete pari. My mail is http://[email protected]

ভাই এই ভাবে অনেক গুলো বাল্প জালানো কি যাবে??