আসুন জানি হেলিকপ্টার এর গঠন এবং এর বিভিন্ন অংশ সম্পর্কে

টিউন বিভাগ ইলেক্ট্রনিক্স
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

অনেকদিন থেকে ব্যাস্ততার জন্য টিউন করা হচ্ছে না কিন্তু ১০-১২ টি বিষয় ঠিক করে রেখেছে যা নিয়ে টিউন করবো। ভেবেছিলাম একটু ফ্রি হলে টিউন গুলো করবো কিন্তু সবাই যেই গতিতে আগাইতেছে তাতে আমার ঠিক করা বিষয়গুলোতে কেউ টিউন করলে আমার পরিশ্রমটাই মাটি হবে তাই ভাবলাম টিউন গুলো একটু সময় করে শেষ করি।

যাই হোক আমি আমার এই টিউনে একটি সাধারন হেলিকপ্টার এর বিভিন্ন অংশ ও তাদের কাজ নিয়ে আলোচনা করবো। তাহলে আসুন জেনে নেই একটি হেলিকপ্টার এর মূল অংশগুলো কি কিঃ

  • মেইন রোটর।
  • টেইল রোটর।
  • টেইল ফিনস।
  • টেইল বুম।
  • স্কীডস।
  • ক্যানোপি।
  • মাফলার
  • ককপিট।
  • ইঞ্জিন।
  • কেবিন।
  • ফুয়েল ট্যাংক

heli_parts

মেইন রোটর

হেলিকপ্টার এর উপরে দুটি ব্লেড এর সমন্বয়ে গঠিত যে রোটরটি(ঘুর্ণন পাখা) এটিকেই মেইন রোটর বলা হয়। মেইন রোটরে মূলত দুটি ব্লেড দেখা গেলেও এতে আরো রয়েছে স্পাইডার, স্লাইডার, ড্যাম্পার, পিচ কন্ট্রোল রোড, মাস্ট, এক্সটেনশন রোড, স্কিসরস আসি, সোয়াশ প্লেট, ফাইবার এবং প্যাডেল।

কাজঃ

  • ইঞ্জিন এবং এর সমন্বয়েই হেলিকপ্টার চালিত হয়।
  • এটি হেলিকপ্টার এর ভারসাম্য রক্ষায় সহায়তা করে।
  • এছাড়াও এটি হেলিকপ্টারকে উপরে উঠা ও নিচে নামায় মুখ্য ভূমিকা পালন করে।

vibe50_main_rotor_grips-1

টেইল রোটর

হেলিকপ্টার এর পেছন দিকে যে ছোট আরেকটি রোটর থাকে এটিকে বলা হয় টেইল রোটর। মূলত হেলিকপ্টার এর লেজের দিকের রোটর বলে এটিকে বলা হয় টেইল রোটর।

কাজঃ

  • এর মূল কাজ হলো পাশ থেকে কোন বাতাস এসে যেন হেলিকপ্টার এর ভারসাম্য নষ্ট না করে এবং মেইন রোটর এর কাজে বিঘ্ন না ঘটায়।
  • এছাড়া এটি হেলিকপ্টার এর মোড় নিতেও সহায়তা করে।

mh-53-fuselage-tail-rotor-1

টেইল ফিনস

আমার জানামতে এই অংশটি সব হেলিকপ্টার এ থাকে না। পেছনে স্থির ব্লেড যা অনেকটা বিমানের ব্লেড এর মত তবে অনেক ছোট এটাই হল টেইল ফিনস। এটা ভারসাম্য রক্ষার জন্য তৈরী।

fex35

টেইল বুম

হেলিকপ্টার এর পেছন দিকে যে লম্বা লেজটি থাকে এটিকেই বলা হয় টেইল বুম। এটি মূলত ভারসাম্য রক্ষা এবং টেইল রোটর অথবা টেইল ফিনস এর কাঠামো তৈরীর জন্য তৈরী।

Tail boom RH 2

স্কীডস

হেলিকপ্টার এর নিচে ল্যান্ডিং এর জন্য যে পাতটি থাকে তাই হল স্কীড।

কাজঃ

  • এটি ল্যান্ডিং এর জন্য ব্যাবহৃত। মূলত মাটিতে হেলিকপ্টারকে দাড়াতে অনেকটা পায়ের মত ব্যাবহৃত হয়।

Eurocopter-AS-350-Skids

ক্যানোপি

হেলিকপ্টার এর সম্মুখভাগে মুখের মত যে অংশ এটাকেই বলা হয় বলা হয় ক্যানোপি।

500_sized_canopy-1

মাফলার

হেলিকপ্টার এর গ্যাস জমা থাকার জন্য যে ট্যাংকটি থাকে স্কীড এর উপরে এটাকেই বলা হয় মাফলার।

a_fury_55_lf_chassis

ককপিট

হেলিকপ্টার এর পাইলট যেখানে বসে এটিকে নিয়ন্ত্রন করে তাকে বলা হয় ককপিট অন্যভাবে বললে এটি হেলিকপ্টারে পাইলটের বসার স্থান।

64565612_a361090e71

ইঞ্জিন

এটাতো মনে হয় আর বলার দরকার নেই তারপরও বলি এর মাধ্যমেই হেলিকপ্টার এবং তার সকল যান্ত্রিক অংশ নিয়ন্ত্রিত হয়। এখানে আর আছে মাফলার, গিয়ার, ক্ল্যাচ মাফলার।

কাজঃ

  • হেলিকপ্টারকে পরিচালনা করা।
  • সকল যান্ত্রিক অংশকে নিয়ন্ত্রন করা।

img_8_1

কেবিন

ককপিট এর পেছনে অন্যান্য আরোহী এবং মাল রাখার যে স্থানটি তাকেই বলা হয় কেবিন।

কাজঃ

  • আরোহী এবং মাল রাখা হয় এখানে

_DSC2558

ফুয়েল ট্যাংক

এখানে হেলিকপ্টারের চালনার জন্য ফুয়েল জমা থাকে।

টিউনটির সুত্রঃ http://www.eee-lab.com

3365572340_ec55ed4f12

Level 0

আমি প্রযুক্তি প্রেমী। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 12 বছর 2 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 137 টি টিউন ও 2163 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 3 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

অনেক দিন পর ভাই ফিরা আসছে। কিন্তু সেই আগের মতই হিট টিউন।পুরা ৫ স্টার।

শাকিল ভাই আপনি আসলেই জিনিয়াস। ******************************************এতো স্টার দিলেও কম হবে।

ভেবেছিলাম আর লগিন করবোনা, কিন্তু লগিন না করেও উপায় নেই…….. 🙂
টিউনটি অনেক ভালো লেগেছে !!!
তবে একটি সাধারন প্রশ্ন আছে, আমার সাধারন চিন্তায় যা বুঝি তা হলো- হেলিকপ্টারের মেইন রোটর উপরে উঠা ও নিচে নামায় মুখ্য ভূমিকা পালন করে, আর টেইল রোটর প্রধানত মোড় নিতে সহায়তা করে। তাহলে হেলিকপ্টার সামনে এগিয়ে যাওয়ার কাজটি কিভাবে হয়? খুব সম্ভবত মেইন রোটরের মাধ্যমেই হয়ে থাকে কিন্তু কিভাবে বা এর পেছনে লজিকটা কি?

    জানিনা আমি যা বলছি তা কতটা ঠিক তবে মেইন রোটর বাতাসের উপর একটা বল তৈরী করে এরপর ইঞ্জিন তা কাজে লাগিয়ে সামনে ধাবিত হয়। আমি এ ব্যাপারে আরো জানার চেষ্টা করছি জানতে পারলে আপডেট দেব।

    ধন্যবাদ চমতকার একটি প্রশ্নের জন্য। আসলে টিউন করার এটাই মূল উদ্দেশ্য আমি যা জানি তা শেয়ার করা এবং আমার কি ভুল আছে বা কোথায় মিসটেক হয়েছে সেটা যেন কেউ ধরিয়ে দেয়।

    কিন্তু দুক্ষের বিষয় আজকাল কেউ গঠনমূলক প্রশ্ন বা সমালোচনা করতে চায় না। আবারো ধন্যবাদ আপনাকে।

    প্রশ্নটি অনেক আগে থেকেই মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিলো, নেটেও খুজেছি তবে তেমন বিস্তারিত কোনো উত্তর পাইনি। 🙁

    আমি জানতাম যে মেইন রোটর টা শুধু ভেসে থকার জন্য কাজ করে। আর টেইল রোটর টা এর সামনে এগিয়ে যেতে কাজে লাগে।

    @সাম্য আমি কিন্তু বলেছি মেইন রোটর বাতাসের উপর বল প্রয়োগ করে অবস্থান সৃষ্টি করে।

    শাকিল ভাই অসাধারণ, অসাধারণ।

    @বিডি ভাই, হেলিকপ্টার বিষয়ে আগ্রহের কারনেই আমি কিছুটা জানি। আপনার প্রশ্নের উত্তরটা আমার জানা।

    নিচে আপনাকে বোঝানোর চেষ্টা করছি:
    আপনি কি সাতার জানেন? তাহলে খুব ভালো বুঝবেন। একজন সাতারু কিন্তু সামনের পানিকে পেছনে ধাক্কা দিয়ে সামনে এগিয়ে যায়। হেলিকপ্টারও তাই করে।
    সাধারনত এটি যখন উপরের দিকে উঠে তখন উপরের বায়ুকে নিচের দেকে ঠেলে উপরে উঠে। কিন্তু সামনে যায় কিভাবে ??

    আশা করি একটা বিষয় আপনি অবশ্যই লক্ষ করেছেন, যখন হেলিকপ্টার সামনে এগিয়ে যায় এটি সামনের দিকে সামান্য হেলে থাকে।

    ফলে এর পাখাও সামান্য সামনের দিকে হেলে থাকে এবং এটি উপরের বায়ুকে নিচের দিকে ঠেলার সাথে সাথে সামনের কিছু বায়ুও পেছনে ঠেলে দেয়। আর এ বাড়তি কাজটুকু অর্থাৎ সামনের বায়ুকে পেছেনে ঠেলে দেয়ার কারনেই হেলিকপ্টার সামনে এগিয়ে যায়।

    অর্থাৎ উপরের বায়ু নিচের দেকে ঠেলে দেয় বলে এটি বাতাসে ভেসে থাকেতে পারে।
    আর সামনের দিকে সামান্য বেঁকে সামনের বায়ুকে পেছনের দিকে ঠেলে দেয় বলে এটি সামনের দিকে এগিয়ে যায়।

    যে হেলিকপ্টার যত বেশি সামনের দিকে বেঁকে যেতে পারে সেটি তত দ্রুত চলে।
    যেহেতু ছোট হেলিকপ্টারগুলো বড়গুলোর চেয়ে সামনের দিকে বেশি বেঁকে যেতে পারে, সে কারনেই ছোট হেলিকপ্টারগুলোর বেগ বড়গুলোর চেয়ে বেশি।

    আশাকরি আপনি কিছুটা হলেও বুঝতে পেরেছেন।
    সুন্দর প্রশ্নের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

      @TareqMahbub: এই বিষয়টি টিউনটিকে আরো সমৃদ্ব করলো।

    ধন্যবাদ তারেক ভাই বিষয়টি সুন্দর ভাবে বোঝানোর জন্য।

    অনেক ধন্যবাদ তারেক ভাই, সুন্দরভাবে বর্ননা করেছেন।
    আর আপনার মতো আমারও হেলিকপ্টার বিষয়ে কিছুটা আগ্রহ হয়েছে। 🙂

শাকিল ভাই টিউনটি চমৎকার হইছে কিন্তু আমার যে তৈরি করতে ইচ্ছা করতেছে । আপনে কি টাকা Donate করবেন ?

    ফান নয় শুরু করুন, শুরু করলে অন্তত কিছু একটা করতে পারবেন এটা আমি নিশ্চিত কারন আপনার মেধা আছে। আর টাকার জন্য থামবেন না বলে আশা করি, করতে পারলে স্পন্সর এর অভাব হবে না।

    শাকিল ভাই মেধা জিনিষটা থাকলেও যথাযথ ব্যবহার করতে পারি না । তবে মাঝে মাঝে চেষ্টা করি এই আর কি ।

শাকিল ভাই গরু কত নিলো । আর গরু কিনলেন বলেন নাই যে। ধন্যবাদ সুন্দর একটা টিউন করার জন্য!

Level 0

টিউনটা eee-lab এ পরছিলাম।তবে বুঝতে সমস্যা হচ্ছিল।যাক,শাকিল ভাই টিউন করছেন দেখে ভালো লাগলো।অনেক ভালো একটা টিউন।ধন্যবাদ।

    আপনি যখন কমেন্ট করেছেন তখনও আমি এই টিউনটা eee-lab এ প্রকাশ করি নাই। ধন্যবাদ।

Level 0

আমি একটা গাধা।

    মজা করেন কেন? আমার তো মনে হয় অনেক মেধাবী যারা তারাই এভাবে বলতে পারে। তাই আমার মনে হয় আপনিও মেধাবী।

Level 0

ভাই এত কিছু বঝলাম তবে মাঝে মাঝে খেলনা হেলিকপ্টার লাগিয়েছেন কেন?

    আপনার বুঝতে একটু ভুল হচ্ছে। এখানে শেষে যে হেলিকপ্টারটি আছে তা লেটেস্ট মডেলের হেলিকপ্টার কিন্তু খেলনা নয় আর মাফলার বোঝানোর জন্য একটা প্রজেক্টের ছবি দিয়েছি তবে ওটাও খেলনা নয় এরপর ফিনস এবং ক্যানোপি এর ছবি দিযেছি বোঝার জন্য তবে তা শুধু অংশবিশেষ।

Level 0

খুব ভাল একটা টিউন। হেলিকপ্টার সম্পকে অনেক কিছু জানতে পারলাম।
ধন্যবাদ সাকিল ভাই।

কোরবানীর জন্য গরুটা ভালই হবে। কোন হাট থেকে কিনলেন।–

খুবই ভালো একটা টিউন। অনেক ক্লেশ স্বীকার করে এরকম একটি তথ্যবহুল টিউন করার জন্য শাকিল ভাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। পরবর্তীতে এয়ারক্রাফট নিয়ে ফাটাফাটি কিছু টিউন হবে বলে প্রত্যাশা রাখছি। অনেক ভালো লাগল। আবারো ধন্যবাদ।

How to remove write protect from a pendrive?

Jotil

@ শাকিল আরেফিন, আপনি এত নাচানাচি করতেছেন ক্যান।

Level 0

Excellent – both tune and comments.
Thanks.

আমি বুঝতে পারছি না কাকে লাইক দিবো। শাকিল ভাইকে নাকি তারেক ভাইকে। অবশ্য দুজনকেই লাইক দেয়া যায়। দুজনেই অত্যন্ত সুন্দর ভাবে বুঝিয়েছেন এইজন্য। কারন উপরে উঠলেই তো আর চলবে না সামনেও আগাতে হবে।

wait shakil vai amio banamo ……………:-)

    হয় তাইলে ভালাই হইবো সাভার নাইমা তোমাগো বাসায় যাইতে আর কষ্ট হইব না তাইলে

ভাইয়া আমিও একটা হেলিকপ্টার বানাবো।কিছু টাকা দাও।পরে তা তোমাকে বিনা পয়সাই ভারা দেবো।কি বলো?

খেলটার দাম কত?

kothin tune ,,, awesome ,,,

দারুণ লেগেছে পোস্টটা