গেমস জোন [পর্ব-৬৯] :: Resident Evil: Revelations HD প্রিভিউ (২০১৩)

টিউন বিভাগ গেমস
প্রকাশিত

গেমস জোন

হুমম! আর কয়েকদিন এর মধ্যেই বাজারে আসছে রেসিডেন্ট ইভিল গেম সিরিজের পরবর্তী গেম রেসিডেন্ট ইভিল রিভেলেশনস। তবে বাংলা গেমিং জগতে গেমটি নিয়ে কোনো আলোচনাই চোখে পড়লো না আমার! আজব!!! কেউ কি রেসিডেন্ট ইভিল পছন্দ করে না!!!!????

Resident Evil: Revelations যা জাপানে Biohazard Revelations (バイオハザード リベレーションズ Baiohazādo Riberēshonzu?) নামে পরিচিত, এটি একটি সুরভাইভাল হরর ভিডিও গেম এবং জনপ্রিয় রেসিডেন্ট ইভিল গেমস সিরিজের একটি গেম। গেমটি মূলত Nintendo 3DS গেমস কনসোল এর জন্য তৈরি করা হলেও গেমটির পিসি, প্লে-স্টেশন ৩ , এক্সবক্স ৩৬০ এবং Wii U সংস্করণ বাজারে আসবে মে ২০১৩ তে। গেমটি নির্মাণ করেছে ক্যাপকম এবং গেমটি Nintendo 3DS কনসোলের জন্য জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১২ সালে বাজারে আসে। জানুয়ারী ২২, ২০১৩ সালে এনাউন্স করা হয় যে গেমটির পিসি, প্লে-স্টেশন ৩ , এক্সবক্স ৩৬০ এবং Wii U সংস্করণও তৈরি করা হবে।

Resident Evil: Revelations HD

নির্মাতা এবং প্রকাশক:

ক্যাপকম

সিরিজ:

রেসিডেন্ট ইভিল

ইঞ্জিণ:

এমটি ফ্রেমওর্য়াক

খেলা যাবে:

মাইক্রোসফট উইন্ডোজ,

প্লে-স্টেশন ৩,

এক্সবক্স ৩৬০,

নিনটেনডু থ্রিডিএস,

ঊই ইউ গেমস কনসোলে।

মুক্তি পেয়েছে:

জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১২ সালে নিনটেনডু থ্রিডিএস এর জন্য,

মে ২১-২৪ ২০১৩ সালে পিসি এবং বাকি কনসোল এর জন্য।

ধরণ:

সুরভাইবাল হরর,

খেলার ধরণ:

সিঙ্গেল এবং মাল্টিপ্লেয়ার

ট্রেইলার ভিডিও:

সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টস:

মিনিমাম:

কোর্য়াড কোর ২.৪ গিগাহাটস গতির প্রসেসর,

২ গিগাবাইট র‌্যাম,

৫১২ মেগাবাইট ভিডিও / গ্রাফিক্স Card,

ডাইরেক্ট এক্স এর মিনিমাম ৯.০সি সাথে শেডার মডেল ৩.০।

সিরিজের আগের গেমগুলোর মতই রেসিডেন্ট ইভিল: রেভিলেশনস গেমটিতে সুরভাইবাল হরর গেম-প্লে থাকছে। এছাড়াও লিমিটেড গুলি সরবরাহ এবং পাজল এলিমেন্টস সমূহগুলোও থাকবে গেমটিতে। গেমটির ক্যামেরা বা ভিউটা ক্যারেন্টার এর ঘাড়ের উপর over-the-shoulder View ফ্রম এ থাকবে। গান এমিং করার সময়ও ক্যারেক্টার মুভমেন্ট করারো যাবে। গেমটিতে সরাসরি First person এবং Third Person ক্যামেরায় সুইট রয়েছে। গেমটিতে একটি নতুন ডিভাইস যুক্ত করা হয়েছে, যার নাম জেনেসিস। এর সাহায্যে গেমটির পরিবেশ এর মধ্যে হিডেন আইটেমগুলো খুঁজে পাওয়া যাবে সহজে। এছাড়াও শুধুমাত্র নিনটেনডু থ্রিডিএস এর জন্য এক্সট্রা রেইড মোড রয়েছে।

গেমটির পটভূমি সেট করা হয়েছে ২০০৫ সালে, রেসিডেন্ট ইভিল ৪ এবং রেসিডেন্ট ইভিল ৫ এর মধ্যে। যেখানে Depicts করা হয় বায়োটেরিজম সিকুরেটি এসেসমেন্ট এলিয়েন্স (BSAA), যা রেসিডেন্ট ইভিল ৫ গেমটিতে একটি কাউন্টার-টেরোরিজম গ্রুপ হিসেবে উপস্থাপন করা হয়। গেমটিতে তোমায় BSAA এর co-founders জিল ভ্যালেন্টাইন এবং ক্রিস রেডফিল্ড এর ভূমিকায় খেলতে হবে, এরা রেসিডেন্ট ইভিল এর প্রথম গেমটিতে ছিল। গেমটির মধ্যে জিল এবং পার্কারকে ক্রিস এবং জেসিকার খোঁজ এর জন্য SS Queen Zenobia তে পাঠানো হয়। গেমটিতে একটি ফ্ল্যাশব্যাকও রয়েছে, যেখানে “Floatin city” of Terragrigia এর ঘটনা দেখানো হয়। এটি গেমটির ইভেন্ট এর ১ বছর আগের ঘটনা।

স্টোরিলাইন:

২০০৫ সাল। বিএসএএ এর হেড ক্লাইভ আর ওব্রায়ান জিল ভ্যালেন্টাইন এবং তার নতুন partner পার্কার লুসিয়ানি কে ক্রিস রেডফিল্ড এবং তার নতুন partner জেসিকা শেরাওয়াত এর খোঁজে পাঠান। ক্রিস এবং জেসিকা হঠাৎ করে missing হয়ে যায় তাদের Veltro এর পুনরায় আগমনের অনুসন্ধাণ করতে করতে।

জিল এবং পার্কার, ক্রিস এবং জেসিকা এর Last Known Location এ গমন করে, যা কিনা একটি অভিশপ্ত শিপ যার নাম SS Queen Zenobia. তাদের অনুসন্ধানের মধ্যে শিপের ভিতর তাদেরকে কিছু B.O.W এর বিরুদ্ধে লড়তে হয় যারা কিনা T-Abyss ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত। এরপর তারা একটি রুমে প্রবেশ করে ওদের কে খোঁজার জন্য, তবে তা বৃথা যায় এবং  BOW দের হাতে ধরা খায় এবং বন্ধী হয়। অবশ্য পড়ে তারা শিপ হতে পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়। এরপর কি হয় তা জানতে হলে অবশ্যই তোমাকে গেমটি খেলতে হবে।!!!

নির্মাণ:

গেমটি নির্মাণ কাজ রেসিডেন্ট ইভিল: দ্যা মার্চেনারিস এর আগেই শুরু হয়। দ্যা মার্চেনারিস একটি নিনটেনডু টেস্ট গেম যা ক্যামকম এর একই স্টাফ দ্বারা নির্মিত। গেমটি স্পেসিফেসিয়ালী নিনটেনডু থ্রিডিএস কনসোল এর জন্য নির্মিত হয় বলে গেমটির গ্রাফিক্স ইঞ্জিণ হিসেবে ব্যবহৃত হয় এমটি ফ্রেমওর্য়াক মোবাইল। তবে পিসি এবং অন্যান্য কনসোল এর রিমেক করতে গিয়ে গেমটিতে ব্যবহার করা হয়েছে এমটি ফ্রেমওর্য়াক। এমটি ফ্রেমওর্য়াক মোবাইল ইঞ্জিনটি লস্ট প্লেনেট ২ গেমটি হতে মোডিফাইকৃত।

গেমটির পরিচালক হিসেবে রয়েছে রেসিডেন্ট ইভিল ৫ এর কো-ডিজাইনার কোউশি নাকানিশি এবং প্রডিউসার হিসেবে রয়েছেন মাশাসিকা কাটাওয়া এবং টাকাউকি হামা। কাটাওয়ার মতে গেমটিতে প্রচুর পরিমাণে ক্রিপ্ট ব্যবহার করা হয়েছে।

গেমটি ব্যাপারে প্রথম তথ্য জানানো হয় ই৩ এর ২০১০ সম্মেলনে। গেমটি ডেমো র্ভাসন দ্যা মার্চেনারিস এর সাথে দেওয়া হয়। আরেকটি ডেমো ডাউনলোড এর জন্য নিনটেনডু শপে হাজির হয় জানুয়ারী ১৯, ২০১২ সালে।

অবশেষে জানুয়ারী ২২, ২০১৩ সালে গেমটির মাইক্রোসফট উইন্ডোজ , প্লে-স্টেশন ৩ এবং এক্সবক্স ৩৬০ সাথে ঊই ইউ কনসোল র্ভাসন বাজারে আসবে Resident Evil: Revelations HD টাইটেলে। গেমটির পিসি সংস্করণে নতুন করে আপগ্রেড করা হয়েছে গ্রাফিক্স সাথে ট্রফিক্স মোডও যুক্ত হয়েছে প্লে-স্টেশন এবং এক্সবক্স সংস্করণে। গেমটি সবোর্চ্চ ডিফিকাল্টি “Infernal“ নিয়ে বাজারে আসবে গেমটির Unveiled Edition মে ২৩, ২০১৩ সালে।

গেমটির নিনটেনডু সংস্করণ জাপানে ২৯৬,০০০ কপি বিক্রি হয়েছে ২০১২ সালে। দেখা যাক পিসি সংস্করণে গেমটি বাজার মাতাতে পারে কিনা।

 http://www.facebook.com/games.zone.bd

Level 10

আমি ফাহাদ হোসেন। Supreme Top Tuner, Techtunes, Dhaka। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 662 টি টিউন ও 429 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 118 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে!


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

গ্রাফিক্স কার্ড ছাড়া বিল্ট ইন গ্রাফিক্সে কি গেমটা চলবে?

Level 0

বিল্ট ইন গ্রাফিক্স এ চলবে না।