গেমস জোন [পর্ব-১৩৬] :: Splinter Cell: Blacklist (২০১৩/প্রিভিউ)

টিউন বিভাগ গেমস
প্রকাশিত

গেমস জোন

হুউরা! অবশেষে আরেকজন এসে গেল গেমস নিয়ে টিউন করতে এবং শেষমেষ প্রতিযোগীতায় নামতে পারবো! হাহাহা! ফাঁকা মাঠে গোল দিতে কারই বা ভালো লাগে বলো! তোমরা আরেকটি “গেমস” এর চেইন টিউন পেয়ে গেলে!। যাই হোক,

স্টেলথ! ভিডিও গেমস জগতে স্টেলথ একটি জনপ্রিয় গেমিং ধরণ। আর এই স্টেলথ গেমস সিরিজে অন্যতম জনপ্রিয় সিরিজ হলো টম ক্ল্যান্সিস স্প্লিন্টার সেল। স্প্লিন্টার সেল সিরিজের সর্বশেষ এবং আপকামিং গেমটি হলো “ব্ল্যাকলিষ্ট”। গেমটিতে অপারেটিভ স্যাম ফিশার এর জীবনে নতুন চ্যাপ্টার রয়েছে যেখানে তাকে টপ সিক্রেট এজেন্সির প্রধাণ রূপে দেখা যাবে। গেমটির কাহিনী স্প্লিন্টার সেল কনভিকশন এর পরেই নেওয়া হয়েছে।

গেমটির সিঙ্গেল প্লেয়ার ক্যাম্পেইন সিরিজের আগের গেমটির সাথে অধিকাংশে প্রায় একই রয়েছে যেমন, টাগেটিং এবিলিটি এবং পয়েন্ট-এন্ড-ক্লিক কভার মুভমেন্টস সাথে ক্ল্যাসিক “প্যারাডোনা টুমোরো” এবং “ক্যায়োস থিউরি”। নতুন ফিচারের মধ্যে রয়েছে অস্ত্রের ব্যবহারে চমক!

গেমটি সবচেয়ে আর্কষণীয় ফিচারটি হলো এর নতুন লেভেন ডিজাইন। গেমটির নির্মাতারা গেমটিতে ওপেন স্ট্যান্ডবক্স স্টাইল এনেছেন, এতে তোমার গেমপ্লেতে স্বাধীণতার মাত্রা ব্যাপক হবে। তবে একটি নির্দিষ্ট অবজেক্টিভ পূরণ করতে হলেও এটা জন্য তুমি বিভিন্ন রাস্তা বা পাথ পাবে।

গেমটির সিঙ্গেল প্লেয়ার ক্যাম্পেইন এর গেমপ্লে কে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

ক) গোষ্ট: সম্পূর্ণ স্টেলথ মোড

খ) এসাল্ট: হালকা “অস্ত্র” এর ব্যবহার

গ) প্যানথার: এটি উপরের দুটির মিশ্র মোড

সিরিজের আগের গেমসগুলোর মতোই গেমটি তুমি যেখানে খেলতে চাবে সেইভাবেই স্কোর এবং গেমটির এলিমেন্টসগুলো পরিবর্তিত হতে থাকবে। তবে শত্রুদেরকে সাজানো হয়ে আরো “কঠিন” ভাবে, এবং নাম দেওয়া হয়েছে “হেভি”। এই “হেভি” গুলো স্যামকে আরো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়। এই সব শত্রুদেরকে মারতে হলে অবশ্যই তোমাকে পিছন থেকে এসে মারতে হবে। এদেরকে সামনা-সামনিতে হত্যা করা অসম্ভব।

যদিও গেমটির প্রাইমারী গোল হলো অন্ধকারে থাকা এবং ধরা না খাওয়া তবে এর নতুন নতুন ফিচার রয়েছে যা “কনভিকশন” গেমটির পরে আবশ্যক ছিল।

টম ক্ল্যান্সিস স্প্লিন্টার সেল: ব্ল্যাকলিষ্ট একটি আপকামিং একশন এডভেঞ্চার স্টেলথ ভিডিও গেম নির্মাণ করেছে ঊবিসফট টরেন্টো এবং প্রকাশ করবে ঊবিসফট। গেমটি টম ক্ল্যান্সিস স্প্লিন্টার সেল সিরিজের ৮ম সংস্করণ এবং স্প্লিন্টার সেল: কনভিকশন গেমটির সিকুয়্যাল।

টম ক্ল্যান্সিস স্প্লিন্টার সেল: ব্ল্যাকলিষ্ট

 

নির্মাতা:

ঊবিসফট টরোন্টো,

ঊবিসফট স্যাংহাই (ঊইই)

প্রকাশ করবে:

ঊবিসফট

সিরিজ:

টম ক্ল্যান্সিস স্প্লিন্টার সেল

ইঞ্জিণ:

পরিবর্তিত আনরিয়েল ইঞ্জিণ ২.৫ (নির্মাতারা একে “লিড”/ “LEAD” বলেন),

হ্যাভোক ফিজিক্স ইঞ্জিণ

খেলা যাবে:

মাইক্রোসফট উইন্ডোজ,

প্লে-স্টেশন ৩,

এক্সবক্স ৩৬০ এবং

ঊইই ইউ গেমস কনসোলে

মুক্তি পাচ্ছে:

আগষ্ট ২০ – ২৩, ২০১৩ সালে

ধরণ:

একশন এডভেঞ্চার,

স্টেলথ

খেলার ধরণ:

সিঙ্গেল এবং মাল্টিপ্লেয়ার

ট্রেইলার ভিডিও:

www.youtube.com/watch?v=rRliZM0Ud3o

www.youtube.com/watch?v=Jtrh9Nj0v30

www.youtube.com/watch?v=OQyZTv8ITYU

সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টস:

কমপক্ষে:

ইন্টেল কোর ২ ডুয়ো ২.১৩ গিগাহার্জ

অথবা

এএমডি এথলন ৬৪ এক্স২ ডুয়াল কেরা ৫৬০০+ গতির প্রসেসর,

জিফোর্স ৮৮০০ জিটি অথবা রাডিয়ন এইচডি ৩৮৭০ মডেলের গ্রাফিক্স কার্ড,

২ গিগাবাইট র‌্যাম,

১২ গিগাবাইট ফ্রি হার্ডডিক্স স্পেস,

উইন্ডোজ এক্সপি সার্ভিস প্যাক ২ ৩২বিট + ডাইরেক্ট এক্স ৯.০

ভালো ভাবে খেলতে হলে:

কোর ২ কোয়াড ২.৪ গিগাহার্জ গতির প্রসেসর অথবা ফেনম ৯৫৫০ কোয়াড-কোর প্রসেরর,

জিফোর্স জিটিএক্স ২৬০ অথবা রাডিয়ন এইচডি ৫৭৭০ ৫১২মেগাবাইট গ্রাফিক্স কার্ড,

৪ গিগাবাইট র‌্যাম,

১২ গিগাবাইট ফ্রি হার্ডডিক্স স্পেস,

উইন্ডোজ সেভেন (৬৪বিট) + ডাইরেক্ট এক্স ১০

আল্ট্রা সেটিং:

কোর আই ৩ ২.৬ গিগাহার্জ গতির প্রসেসর,

জিফোর্স জিটি ৫৪৫ ডিডিআর৩ অথবা রাডিয়ন এইচডি ৫৬৭০ মডেলের গ্রাফিক্স কার্ড,

৪ গিগাবাইট র‌্যাম,

১২ গিগাবাইট ফ্রি হার্ডডিক্স স্পেস,

উইন্ডোজ সেভেন (৩২বিট) সাথে ডাইরেক্ট এক্স ১০

ব্যাকস্টোরি:

তৃতীয় ইচিলন কন্সপিরেসি এর অনুসারে, সাবেক এজেন্ট স্যাম ফিশার তার বন্ধু ভিক্টর এর সাথে তার PMC “প্যালাডিন ৯” জয়েন করে। ভিক্টর “দ্যা ইঞ্জিণিয়ারের” দ্বারা আক্রমিত হয়। এরা হলো ১২টি জঙ্গির মিলিত গ্রুপ যারা একত্রে “দ্যা ব্ল্যাকলিষ্ট” নামে পরিচিত। এই ব্ল্যাকলিষ্টরা আমেরিকায় আক্রমণ করবে।

স্প্লিন্টার সেল: ব্ল্যাকলিষ্ট গেমটির পটভূমি সেট করা হয়েছে স্প্লিন্টার সেল: কনভিকশন গেমটির ছয় মাস পরে। স্যাম ফিশার যেখানে একজন নতুন স্পেশাল অপারেশন এবং কাউন্টার-টেরোরিজম ইউনিক “ফোরথ ইচিলন” এর কমান্ডার এবং সে তার কাজকর্মের জন্য ডাইরেক্ট ইউ.এস. প্রেসিডেন্ট এর নিকট দায়ী থাকে।

ফোরথ ইচিলন এর প্রাইমারী কাজ হলো, প্রেসিডেন্ট এর মত অনুযায়ী, তৃতীয় ইচিলন এর সমস্ত কার্যাবলী বন্ধ করে দেওয়া যা এর এজেন্টরা শুরু করেছিল। স্যাম এর তার দলের সদস্যরা অবশ্যই সমস্ত “ব্ল্যাকলিষ্ট” ওরফে ইঞ্জিনিয়ারদের হান্ট ডাউন করতে হবে যে কোনো মূল্যে।

গেমটিতে আগের চরিত্র যেমন এন্না “গ্রিম” গ্রিমসডোটিক, ভিক্টর কোস্টি এবং এন্ড্রি কোবিন এর পাশাপাশি নতুন চরিত্র ইসহাক ব্রিগজস এবং চার্লি কোল ইত্যাদিও রয়েছে।

প্রথম মিশন:

American Power: Anderson Airforce Base, Guam (Day 0) - - - -

ইউ.এস এর বিপক্ষে ব্ল্যাকলিষ্ট এর প্রথম আক্রমণ হয় Guam আইল্যান্ডের বিমান ঘাঁটিতে। স্যাম এর হেলিকপটার ধ্বংস হয় এবং সে পায়ে আঘাত পায়। মিশনটিতে স্যামকে ভিক্টর এর অনুসরণ করে একটি রাডার জ্যামার নিষ্ক্রিয় করতে হবে।

দ্বিতীয় মিশন: Benghazi, Libya -- - - - - - --

দ্বিতীয় মিশনে, স্যামকে পাঠানো হয় লিবিয়াতে “এন্ড্রি কোবিন” কে মুক্ত করার জন্য যে বেনঘাজি শহরে বন্দি অবস্থায় রয়েছে এবং তার কাছে Guamমের হামলার উপর গুরুর্ত্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে।

তৃতীয় মিশন: Mirawa, Iraq

তৃতীয় মিশনটি ইরাকে সেট করা হয়েছে, এখানে স্যাম কোবিনের বানানো অস্ত্রের ভান্ডার লুট করে এবং ইঞ্জিনিয়ারদের উপর আক্রমণ করে।

৪র্থ মিশন: American Consumption: Chicago, IIIinois (Day 7) - - - -

আমেরিকায় ব্ল্যাকলিষ্টদের ২য় আক্রমণ শিকাগোয়, এরা শিকাগোর পানি সাপ্লাইয়ে বিষ মেশাতে চাচ্ছে।

৫ম মিশন: American Freedom (Day 14) ----

তৃতীয় ব্ল্যাকলিষ্ট আক্রমণ, তবে টার্গেট এখনো জানতে পারি নি।

৬ষ্ঠ মিশন: American Fuel: Sabine Pass, Louisiana (Day 21) -----

ব্ল্যাকলিষ্টদের ৪র্থ আক্রমণ একটি লিকুইড ন্যাচারাল গ্যাস ফ্যাক্টরিতে যা সাবিনি পাস, লুউসিয়ানাতে অবস্থিত। ইঞ্জিনিয়ারা একটি ভাইরাস ফ্যাক্টরির আগুন নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থায় ঢুকিয়ে দেয়। এখানে স্যাম এর কাজ হলো ফ্যাক্টরিতে প্রবেশ করে একটি টার্মিনাল একটিভ করা যাতে কোল ডিফেন্স ব্যবস্থা আবারো চালু করতে পারে।

৭ম মিশন: American Blood ----

৫ম ব্ল্যাকলিষ্ট আক্রমণ, এবং এটার ব্যাপারেও আমি কিছুই জানি না এখন পর্যন্ত!

৮ম মিশন: American Dust -----

৬ষ্ঠ ব্ল্যাকলিষ্ট আক্রমণ, এবং এটার ব্যাপারেও আমি কিছুই জানি না এখন পর্যন্ত!

মিশন লোকেশন:

গেমটির ৩৫টি লোকেশন রয়েছে মিশনের জন্য। এদের মধ্যে রয়েছে:

> Kigali, Rwanda

> Philadelphia, PA

> Pihtla, Estonia

> Chicago, IL

> Sana’a, Yemen

> Amman, Jordan

> Mirawa, Irag

> Benghazi, Libya,

> Istanbul, Turkey,

> Hawkins Seafort, English Channel,

> Anderson Airforce Base, Guam

> Ciudad Del Este. Paraguay

> London, Uk,

> Denver, Colorado,

> Shiraz, Iran

> Germany,

> Sabine Pass, Louisiana,

> Dallas Stadium, Texas

> Farvab Province, Afghanistan,

> Silo, New Jersey, USA

> Particle Accelerator, Silicon valley, USA

> Cartel, Cartagena De Indias, Colombia

> Uranium Mine, Arandis, Namibia

> Lebanese Hospital, Beirut, Lebanon,

> Virus Vault, Heard Island, Antarctica

অস্ত্রসমূহ:

> ক্যারামবিট ছুড়ি! একটি বাঁকানো ব্লেড যা দ্রুত হত্যার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

হ্যান্ডগান সমূহ:

> Five-seveN

> F40

> USP. 45

> PX4 Storm. 45

> Makarov PM-B

> Desert Eagle

> .357 Magnum

> Tazer

এসাল্ট রাইফেল সমূহ:

> HK416

> AK-47

> SCAR-H

> FAMAS

> HK G36C

> Beretta ARX – 160

> Goblin

> Honey Badger

> AR15 Carbine

সাব-মেরিন অস্ত্র সমূহ:

> AKS-74U

> MP7A1

> Vector.45ACP

> UMP-45

> CZ SCORPION EVO 3 A1

> MAC-10

> Mini-Uzi

শটগান সমূহ:

> M1014

> Saiga – 12

> AA -12

> SASG – 12

> RMB – 93

স্নাইপার রাইফেল সমূহ:

> VSS Sniper Rifle

> SVU Dragunov

> MK 11 MOD

> SR – 15

> Barrett 50. Cat

> SVD Dragunov

স্পেশাল অস্ত্র:

> Crossbow

> Door Breach --- একটি রিমোট বোম টাইপের। এর দ্বারা দরজা ভাঙ্গা যাবে এবং দেয়ালে ওপাশের শত্রুকে হত্যা করা যাবে। এটি ব্যাপক শব্দের সৃষ্টি করবে।

পরিধান সমূহ (Suits):

> 4E Urban Tracker

> 4E Shadow Armor

> Classified

> Spy Suit

> Mercenary Suit

> Ghillie Suit

> Mk V

> Mk VII

> Mk VIII (Default Suit)

> Alpha Ops Suit

> Raven Ops Suit

গিয়ার সমূহ:

> OPSAT

> Ops Suit

> Sonar Goggles

> Night Vision Goggles

> Thermal Optic Goggles

গ্যাজেড সমূহ:

> Hand Crossbow --- বিভিন্ন ধরণের তীর ছুড়তে সক্ষম

> Under-mounted Launcher

> Night Vision

> Thermal Vision

> Snake Cam

> Sticky Shocker Bolt

> Spider Bolt

> Tri-Rotor

> Sticky Camera

> Sticky noisemaker

> Flashbang

> Sleeping Gas!!

> Smoke Grenade

> Proximity Shocker

> Frag Grenade

> Incendiary Grenade

সংস্করণ সমূহ:

অন্যান্য গেমসগুলোর মতোও গেমটি কয়েকটি সংস্করণে মুক্তি দেওয়া হবে:

> “Paladin Multi-Mission Aircraft Edition” : এটিতে প্যালাডিনের একটি মডেল থাকবে এবং একটি “স্প্লিন্টার সেল: ইচস” এর কপি থাকবে।

> সমস্ত প্রিঅর্ডারে “Upper Echelon Pack” বোনাস থাকবে। যাতে রয়েছে Gold Sonar maps এবং co-op map

> অন্যান্য প্রিঅর্ডারে রয়েছে বিভিন্ন ধরণের বোনাস অস্ত্র।

বিবিধ:

> এটি প্রথম স্প্লিন্টার সেল গেম হতে যাচ্ছে যেখানে স্যাম ফিশার এর ভয়েসে মাইকেল আইরনসাইড থাকছেন না। উনার বদলে থাকছেন ইরিক জনসন।

> এটি প্রথম স্প্লিন্টার সেল গেম হতে যাচ্ছে যেখানে স্যাম ফিশার co-op mode এ খেলতে যাচ্ছে। সিরিজের আগের গেমগুলোতে কো-অপ হিসেবে খেলা যেত অন্যান্য চরিত্রে।

> ব্ল্যাকলিষ্টরা গেমটিতে বিভিন্ন অবজেক্ট আনবে, এতে তোমাকে প্রাইমারী, সেকন্ডারী, অপশনাল এবং বোনার অবজেক্টিভ পূরণ করতে হবে

> গার্ড হিসেবে কুকুর ফিরেছে

> ব্যাকলিষ্টে প্রচুর পরিমাণে উপাদান থাকছে যা গেমটিকে সবচেয়ে বড় স্প্লিন্টার সেল গেম হতে যাচ্ছে।

> গেমটিতে স্পাইডার তীর থাকবে বলে আশা করা হলেও এটির বদলে এখন ট্রি-রোটর- ড্রোন আসছে।

আশা করবো আজকের গেমস জোনটি তোমাদের ভালো লেগেছে, আমার লেখা গেমস জোন শুধুমাত্র ফেসবুকে আমার নিজস্ব এবং গেমস জোনের আসল পেজ http://www.facebook.com/games.zone.bd এই পেজটাতে আমি শেয়ার করে থাকি। বাকি কোনো পেজে আমার গেমস জোনের পোষ্ট শেয়ার করা হয় না। যদি করে থাকে তাহলে তারা আমার পারমিশন ছাড়াই এ কাজ টি করেছে। আপনারা যদি ফেসবুকে আমার গেমস জোনের পোষ্ট সমূহ অন্যান্য পেজে পেয়ে থাকেন তাহলে একটু কষ্ট করে আমাকে জানিয়ে দেবেন প্লিজ। বহু কষ্ট করে বহু সময় খরচ করে গেমস জোনের এক একটি পর্ব লিখি আমি।

গেমস জোন মুলত টিউনারপেজ (www.tunerpage.com) ব্লগে আমি নিয়মিত এবং প্রথম থেকে লেখা আরম্ভ করেছিলাম। সেখানে গেমস জোনের মোট পর্বের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ১৯৭টি। আমি নিজে টিউনারপেজ, টেকটিউনস এবং বাংলা ফ্যামিলি ব্লগে গেমস জোন টিউন করে থাকি। আগে পিসি হেল্পলাইনে করতাম এখন করি না। তাই আপনারা যদি নিচের ৩ টি ব্লগের বাইরে অন্য কোনো ব্লগে আমার গেমস জোনের কপি দেখে থাকেন তাহলে দয়া করে কমেন্টে জানান অথবা ফেসবুকেও আমাকে জানাতে পারেন (fb.com/talented.fahad)

http://www.tunerpage.com

http://www.techtunes.co

http://www.banglafamily.com

>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>>><<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<

 

Level 10

আমি ফাহাদ হোসেন। Supreme Top Tuner, Techtunes, Dhaka। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 662 টি টিউন ও 429 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 118 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে!


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস