গেমস জোন [পর্ব-১৬১] :: এসাসিন্স ক্রিড ৪ (২০১৩) – জলদস্যূ দুনিয়ায় স্বাগতম!

টিউন বিভাগ গেমস
প্রকাশিত

গেমস জোন

এসাসিন্ড ক্রিড ৪: ব্ল্যাক ফ্ল্যাগ চলে এসেছে বাজারে! ইতিহাস বিষয়ক একশন-এডভেঞ্চারমূলক এই গেমটি নির্মাণ করেছে ঊবিসফট মনট্রিয়াল এবং প্রকাশ করেছে ঊবিসফট। গেমটি এসাসিন্স ক্রিড সিরিজের ৬ষ্ঠতম প্রধান সংস্করণ এবং ২০১২ সালের এসাসিন্স ক্রিড ৩ গেমটির সিকুয়্যাল যেখানে এসাসিন্স ক্রিড ৩ গেমটির কাহিনীর পূর্বসুত্র (Prequel) নিয়ে এসাসিন্স ক্রিড ৪ গেমটি সাজানো হয়েছে।

গেমটি বিশ্বব্যাপি মুক্তি পেয়েছে অক্টোবরের ২৯, ২০১৩ সালে। বলে রাখছি যে, আমি ফিফা এবং এসাসিন্স ক্রিড সিরিজের ভক্ত নই একদমই! কিছু কিছু গেমস রয়েছে যা দেখলেই বমি বমি ভাব চলে আসে আমার তাদের মধ্যে এইটি একটি। তাই আজকের রিভিউটি একদমই ভালো হয় নি! দুঃখিত!

নির্মাতা এবং প্রকাশকঃ

ঊবিসফট

পরিচালক:

আশরাফ ইসমাঈল,

জন গুয়েসডন

প্রযোজক:

সালভেইন ট্রোটিয়ার

লিখেছেন:

ডারবি মিক’ডেভিট

সিরিজ:

এসাসিন্স ক্রিড

ইঞ্জিণ:

এনভিল নেক্সট (AnvilNext)

খেলা যাবে:

বহু প্ল্যাটফর্মে

মুক্তি পেয়েছে:

অক্টোবর – নভেম্বর, ২০১৩

ধরণ:

একশন-এডভেঞ্জার,

স্টেলথ

খেলার ধরণ:

সিঙ্গেল এবং মাল্টিপ্লেয়ার

সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টস:

কোর ২ কোয়াড ২.১৩ গিগাহাজ গতির প্রসেসর,

জিফোর্স জিটিএক্স ২৬০ অথবা রাডিয়ন এইচডি ৪৮৭০ গ্রাফিক্স কার্ড,

২ গিগাবাইটে র‌্যাম,

৩০ গিগাবাইট ফ্রি হার্ডডিক্স স্পেস,

উইন্ডোজ সেভেন (এক্সপি সার্পোট করবে না),

ডাইরেক্ট এক্স ১০

 

গেম-প্লেঃ

গেমটি তিনটি প্রধান শহর ফিচার করবেঃ হাভানা, কিংস্টোন এবং ন্যাসো-বাহামাস যেগুলো যথাক্রমে স্প্যানিশ, ব্রিটিশ এবং পাইরেট প্রভাব বিস্তার করছে। গেমটি আরো ৫০টি ইউনিক পটভূমি ফিচার করবে যা তোমাকে খুঁজে বের করতে হবে। এগুলোর ৬০ ভাগ ভূমি এবং ৪০ ভাগ জল। গেমটি সিরিজের প্রথম গেমটির মতো মিশনগুলো হবে তবে এসাসিন্স ক্রিড ৪ গেমটিতে ওপেন ওয়ার্ল্ড ফিল টা আরো বেশি পাওয়া যাবে। এই সুবিধাটি এসাসিন্স ক্রিড ৩ গেমটিতে নেই।

গেমটিতে প্লেয়ার বিভিন্ন পটভূমিতে স্বাধীণভাবে ঘোরাফেরা করতে পারবে। গেমটির গ্রাফিক্স খুবই চমৎকার ভাবে সাজনো হয়েছে সাথে রয়েছে অসাম সাউন্ড ইফেক্ট। জঙ্গলের ভিতর রাতের বেলা ঝিঁঝি পোকার শব্দটি খুবই ভালো লেগেছে আমার।

গেমটির হান্টিং সিস্টেম আনা হয়েছে এসাসিন্স ক্রিড ৩ গেমটি থেকে যেখানে প্লেয়ার ভূমিতে শিকার করতে পারবে এবং জলে মাছ শিকার করতে পারবে!

গেমটিতে ফিরে এসেছে এসাসিন্স ক্রিড: ব্রাদারহুডের রিকুইট সিস্টেম, যেটার সাহায্যে প্লেয়ার দলের সদস্যদের নিতে পারবে। যদিও দলের সদস্যরা কমবাট এবং র্দীঘ মিশনসমূহে পাওয়া যাবে না।

সেটিং:

সিরিজের আগের গেমসগুলোর মতো এসাসিন্স ক্রিড ৪ গেমটির কাহিনীচক্র দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। একটি হলো বর্তমান যুগের কাহিনী এবং আরেকটি হলো অতীতের (Historical) কাহিনী। এবং এই দুটি যুগের ঘটনাসমূহ একে অন্যকে প্রভাবিত করবে। তবে গেমটিতে এসাসিন্স এর চেয়ে পাইরেট সেটিংতে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

গেমটিতে ডেসমন্ড এর পূর্বসুরী এডওর্য়াড কেনওয়ের ভূমিকায় তোমাকে খেলতে হবে। এডওর্য়াড একজন পাইরেট (জলদস্যু) এবং তার কাহিনীচক্র সেট করা হয়েছে পাইরেটের সোনালী দিনগুলোতে ক্যারাবিয়ানে। ক্যারাবিয়ান আইল্যান্ডটি সাউথ ফ্লোরিডায় অবস্থিত।

কাহিনীচক্র:

ডেসমন্ড মাইলস এর মৃত্যুর পর তার শরীল থেকে নেওয়া স্যাম্পলসমূহ আব্সটারগোদের সুযোগ করে দিয়েছে মাইলসের মেমোরীতে এক্সপ্লোর চালিয়ে যাবার জন্য। এখানে আবস্টারগোরা ব্যবহার করছে এনিমস এর নতুন ক্লাউড কম্পিউটিং ফিচারটি। নাম না দেওয়া প্লেয়ার চরিত্রকে আবস্টারগোরা বেছে নিয়েছে আঠারশো দশকের পাইরেট এবং রাটোনহাকিটোন এর দাদা (grandfather) এডওর্য়াড ক্যানওয়ের মেমোরি বসার জন্য। যেখানে আবস্টারগো এবং টেম্পলাররা একটি বস্তুকে খুঁজেতেছে। যার নাম Observatory. এটি এমন একটি জিনিস যেটায় কারো রক্ত ঢাললে তার চোখের দৃষ্টি দিয়ে তারই মেমোরীতে প্রবেশ করা যায়।

এডওর্য়াড এর ভূমিকায় প্লেয়ারকে উচ্চ মানের টেম্পলারদের বিরুদ্ধে লড়তে হবে যারা ব্রিটিশ, স্প্যানিশ এবং ফ্রেঞ্চ রাজ্যে রাজত্ব করছে। এরা ক্যারাবিয়ান থেকে পাইরেটদের উচ্ছেদ করতে উঠে পড়ে লেগেছে।

তবে এর পিছে টেম্পলারদের একটিই স্বার্থ রয়েছে, বার্থোলোমিউ রবার্ট কে খুঁজে বের করা। কারন রবার্ট ই একমাত্র লোক যে Observatory এর অবস্থান সম্পর্কে অবহিত। এর জন্য টেম্পলাররা পৃথিবীর লিডারদের উপর স্পাই এবং ব্ল্যাকমেইল করছে।

মজার ব্যাপার হলো এডওর্য়াড একজন রাগী এসাসিন্সকে হত্যা করে তার পরিচয় নিজের নামে বহন করে নেয়! ওই এসাসিন্স এর উল্টা-পাল্টা কাজের জন্য সমস্ত এসাসিন্স অর্ডার নড়ে-চড়ে বসে। তারা এডওর্য়াডকে সেইজ এর হত্যার আদেশ দেয় যার জন্য এডওর্য়াডকে আফ্রিকা অঞ্চলে যেতে হয়।

অন্যদিকে একটি পাইরেট দল যেখানে এডওর্য়াড “ব্ল্যাকব্রিড” থ্যাচ, বেনজামিন হরনিগোল্ড এবং চার্লিস ভেইন অন্যান্যরা রয়েছে। তারা একটি রাজ্যের স্বপ্ন দেখে যেখানে মানুষ রাজা-বাদশাদের অত্যাচার থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীনভাবে বাঁচতে পারে। তাই এডওর্য়াড ন্যাসো কলোনিতে “পাইরেট রিপাবলিক” গড়ে তুলে।

তবে দূর্বল সরকার ব্যবস্থা, অর্থের অভাব এবং রোগের প্রার্দূভাব কলোনিকে প্রায় ধ্বংসের কাছাকাছি নিয়ে এসেছে। এর উপায় বের করার জন্য এডওর্য়াড আপ্রাণ চেষ্টা করে কিন্তু সে পারে না। টেম্পলাররা ক্যারাবিয়ানের দখল নিয়ে নেয়। বাকিটুকু কি হলো তা তোমায় গেমটি খেলে জানতে হবে।

গেমটির বর্তমান যুগের কাহিনীতে প্লেয়ার আবস্টারগোর ইনফরমেশন টেকনোলজি ম্যানেজার জনের দ্বারা একটি চুক্তিতে আবদ্ধ হয়। যেখানে প্লেয়ারকে তদন্তে নামতে হবে।

চাঁদনি রাতে ঝিঁঝিঁ পোকার গুঞ্জণ আর কোথায় পাবে!
মনে হইতেছে যেন আলিফ লায়লা দেখতেছি!
মারাত্বক সামুদ্রিক ঝড়!
জলের নিচে ঘুমাই!
ডুবিয়া যাহাতে নাহা যায়!
ডুবছে রে!
চমৎকার গ্রাফিক্স!
মহিলা এসাসিন্স!
মহিলার মাইর খাইতে কিরাম লাগে মিয়া বাই!
ঈগলের মতো বসে রয়েছি কিংবা ডিম পাড়ার চেষ্টায় ব্যস্ত!
গেম ওভার

ডাউনলোড:

kickass.to/assassin-s-creed-iv-black-flag-pc-edition-crack-skidrow-t8205729.html

or

skidrowgamescrack.net/assassins-creed-iv-black-flag-reloaded-skidrow-game-crack-download/

জ্ঞাতব্য:

> গেমস জোন শুধুমাত্র বিনোদনের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এর উপাদান সমূহের দ্বারা কেউ মনে কষ্ট কিংবা আঘাত পেলে তা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার আহ্বান জানাচ্ছি।

> গেমস জোনে ব্যবহৃত বাংলা কভার, ওয়ালপেপারসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে লেখকের নিজস্ব সৃস্টি। এর সাথে আসল গেমটির কোনো সর্ম্পক নেই

> গেমস জোন এর সাথে উক্ত গেমসগুলোর কোনো সরাসরি সম্পৃত্ত নেই এবং থাকবে না।

> গেমস জোন এর গেমসগুলোর রিলিজ তারিখ, নির্মাতা, প্রকাশক, মুক্তির তারিখ, সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টস এবং চিটকোড  তথ্য গুলো বিভিন্ন ওয়েবসাইট হতে সংগৃহকৃত। লেখক এখানে শুধুমাত্র বাংলায় লিখেছেন।

> ডাউনলোড লিংক এবং এর ফাইলসমূহ সর্ম্পূণ ভাবে অন্য সাইট হতে কপিকৃত। লেখকের সাথে ডাউনলোড লিংক এর কোনো সম্পৃত্ততা নেই।

> সর্বপরি গেমস জোন লেখক গেমওয়ালার ব্যক্তিগত কর্ম মাত্র। এর সাথে এই ব্লগের কোনো সর্ম্পক নেই এবং গেমস জোনের সকল তথ্য (ডাউনলোড লিংক ব্যাতিত) এর জন্য শুধুমাত্র লেখক গেমওয়ালা দায়ী থাকবে।

> গেমস জোন একটি সর্ম্পূণ ফ্রি গেমস রিভিউ এবং প্রিভিউ টিউন। তাই এর যেকোনো উপদান স্বাধীনভাবে “ব্যক্তিগত” উদ্দেশ্যে যে কেউ ব্যবহার করতে পারবে। তবে গেমস জোন কে “করপোরেট” ভাবে কখনোই ব্যবহার করা যাবে না।

> বর্তমানে গেমস জোন  লেখক এর দ্বারা নিচের ব্লগ সমূহে টিউন করা হচ্ছে:

http://www.tunerpage.com

http://www.techtunes.co

> গেমস জোন সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যা, পরামর্শ, অভিযোগ এবং অন্যান্য যে কোনো বিষয়ের জন্য গেমস জোন এর ফেসুবক পেইজ http://www.facebook.com/games.zone.bd তে যোগাযোগ করুন অথবা সরাসরি লেখক গেমওয়ালার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন fb.com/talented.fahad

যদিও ক্রিড মানে ধর্মবিশ্বাস এবং ফ্ল্যাগ মানে পতাকা তবুও গেমটির কাহিনীর সাথে যায় এরকম শব্দ দিয়েছি!

Level 10

আমি ফাহাদ হোসেন। Supreme Top Tuner, Techtunes, Dhaka। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 9 বছর 3 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 662 টি টিউন ও 429 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 118 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে!


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ধন্যবাদ গেমওয়ালা ভাই

Assassins creed series এই দুনিয়ার সেরা গেম সিরিজ।যারা এই গেম কে ভুয়া ভাবে তাদের গেম খেলার দরকারই নেই।বিশ্বে বেশ কয়েকবার গোল্ডেন জয়স্টিক এওয়ার্ড পাওয়া ছারাও প্রতিবার এই গেম সারা বিশ্বে টপ টেন গেমের মধ্যে ১-৫ এর মকধ্যে থাকে।এই গেমের কাহিনির মত কাহিনি আর হয় না।আইজিএন এর রেটিং এ এটি ১০ এর মধ্যে পেয়েছে ৯.৫।এই গেম এর সব কিছুই অসাধারণ।আমি এখনও Assassins creed IV:Black Flag খেলিনি।তবে প্রতিবারই এই গেম রিলিজ হবার সাথে সাথে আমি সবার আগেই কেনার অপেক্ষায় থাকি।এই গেম সিরিজ এর সবগুলা পার্ট আমি রিলিজ হবার সাথে সাথে কিনে এই পর্যন্ত ৩-৪ বার গেম অভার করেছি।Assassins Creed series এর গেম খেলতে পেরে আমি অত্যন্ত গর্বিত।আমি নিজেকে এই গেম এর সবচেয়ে বড় ফ্যান অ ভাবি 🙂 ।ধন্যবাদ গেম ওয়ালা ভাইকে এই গেম টি কে নিয়ে টিউন করার জন্য।ব্লাক ফ্লাগ এখনই কিনেছি।মোটকথা,আমি এই গেম বলতে পাগল!!!!

ব্ল্যাকব্রিড না, হবে ব্ল্যাকবিয়ার্ড।

১৮ শতকের অন্যতম ডেঞ্জারাস জলদস্যু ছিল সে