ADs by Techtunes ADs
ADs by Techtunes ADs

“হার্ডওয়্যার সমস্যা ও তার সমাধান-পর্ব-২” কম্পিউটার কানেকশনস ও কানেকটর পোর্ট

টিউন বিভাগ হার্ডওয়্যার
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

গত পর্বে আমরা কম্পিউটারেরর বিভিন্ন হার্ডওয়্যারের পরিচিতি নিয়ে আলোচনা করে ছিলাম। আর যারা এখনো হার্ডওয়্যার পরিচিতি পড়তে পারেননি তারা অতি শীঘ্রই পর্বটি দেখে নিন। কারণ পরিচিতি পর্ব ভালভাবে না জানা থাকলে বাকী পর্ব কিছুই বুঝবেন না। কাজেই দেরী না করে এখান থেকে দেখে নিন পরিচিতি পর্বটি।

ADs by Techtunes ADs

হার্ডওয়্যার সমস্যা ও তার সমাধান পর্ব-১

আজ আমরা আলোচনা করব কম্পিউটারের বিভিন্ন কানেকশন পোর্ট ও কানেক্টর নিয়ে। কারন কানেকশন কম্পিউটারের খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আমরা যখন কম্পিউটার অ্যাসেমব্লিং করব তখন বিভিন্ন পোর্টের সাথে বিভিন্ন কানেকটরের কানেকশন দিতে হবে। আর তখন যদি সেই কানেকশনটি না-ই চিনি তবে অ্যাসেমব্লিং রেখে শূধু কানেকটরটি খুঁজে খুঁজে হয়রান হতে হবে। এছাড়াও পরবর্তীতে যখন হার্ডওয়্যার সমস্যা ও সমাধান নিয়ে আলোচনা করব তখনো এই কানেকটর নিয়ে কাজ করতে হবে। আর তখন না বুঝে ইল্টো-পাল্টা কানেকশন দিলে আপনার পিসিতো বাতিল হবেই আপনিও বাতিল হয়ে যাবার সমূহ সম্ভাবনা থাকবে। কাজেই কানেকটর ও কানেকশন পোর্ট খুবই ভালভাবে চিনতে হবে। আসুন তবে চিনে নিই কানেকটর ও কানেকশনস।

In Put 220V

১। In Put 220V পাওয়ার পোর্টঃ এটা আপনার কেসিংএর ভেতরের পাওয়ার সাপ্লাইয়ের পোর্ট। কেসিংয়ের পেছন দিকে তাকালে দেখবেন উপরের দিকে বড় ছয় কোনা একটি পোর্ট। এটাতে পাওয়ার ক্যাবল সংযোগ করা হয়।

২। পাওয়ার ক্যাবলঃ এটা মেইন ২২০ ভোল্ট লাইন থেকে পিসিতে পাওয়ার সাপ্লাইয়ের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এটাকে পাওয়ার কর্ডও বলা হয়েথাকে। এটার এক মাথা ছয় কোনা ও অপর মাথা মেইন ২২০ ভোল্টে সংযোগ স্থাপনের জন্য তিনটি বা দুইটি পিন থাকে। ছয়কোনার প্রান্তটি কেসিং এর পাওয়ার পোর্টে লাগানো হয়। এই পাওয়ার কর্ডটি অবশ্যই ভাল এবং বেশী অ্যাম্পিয়ার সাপোর্টেড হতে হবে। কেননা এই একটি মাত্র ক্যাবল দিয়ে পুরু পিসি এবং মনিটরে পাওয়ার সরবরাহ করা হয়ে থাকে। কোন কোন ক্ষেত্রে অবশ্য মনিটরের জন্য আলাদা ক্যাবল ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

৩। ATX ২৪ পিন মেইন পাওয়ার কেবলসঃ এটা পাওয়ার সাপ্লাইয়ের সবচেয়ে বড় কানেক্টর। এটাতে ২০+৪=২৪ টি পিন থাকে। মাদারবোর্ডে পাওয়ার সরবরাহের জন্য এই পোর্টটি ব্যবহার করা হয়। কোন কোন মাদারবোর্ডের পাওয়ার কানেক্টর ২০ পিনের হয়। তখন এই ২৪ পিনের ক্যাবলটি থেকে ৪টি পিন আলাদা করে ২০ পিন সংযোগ দেয়া হয়। খেয়াল করে দেখুন ক্যাবলটির এক পাশে ৪টি পিন আলগা। এই আলগা পিন ৪টি বাহিরের দিকে ধাক্কা দিনঅ দেখবেন খুলে যাবে।

৪। ATX ৪ পিন পাওয়ার কেবলসঃ পাওয়ার সাপ্লাই থেকে বর্গাকৃতি আরেকটি চার পিনের কানেক্টর বের হয়েছে। এটার তার গুলোর দুটি কাল এবং দুটি হলুদ। এটাকে P4 পাওয়ার কানেক্টরো বলে। প্রসেসরে ডেডিকেটেড পাওয়ার সাপ্লাইয়ের জন্য এই কানেক্টরটি ব্যবহার করা হয়। এটাতে +১২ ভোল্ট পাওয়ার থাকে।

ADs by Techtunes ADs

৫। ৪ পিন প্যারিফেরাল পাওয়ার ক্যাবলঃ সাদা মাথার ৪ পিনের কানেক্টরটিকে প্যারিফেরাল পাওয়ার কানেক্টর বলে। এটাতে দুটি কাল, একটি লাল, ও একটি হলুদ তার থাকে। হার্ডডিস্ক ও অপটিক্যাল ড্রাইভে পাওয়ার সাপ্লাইয়ের জন্য এটা ব্যবহার করা হয়।

৬। SATA পাওয়ার ক্যাবলঃ এই ককানেক্টরের মাথাটি থাকে কাল এবং চ্যাপ্টা। এটাকে সিরিয়াল ATA কানেক্টর ও বলা হয়। এটাতেও দুটি কাল, একটি লাল ও একটি হলুদ তার থাকে।

৭। ফ্লপি ড্রাইভ পাওয়ার ক্যাবলঃ এই পোর্টটি দেখতে সাদা রংয়ের। এটাকে মিনি কানেক্টর বলা হয়ে থাকে। কখনো কখনো আবার মিনি মোলেক্স ও বলা হয়। এটাতে ৪টি তার থাকে। এটাতেও দুটি কাল, একটি লাল ও একটি হলুদ তার থাকে।

৮। সিপিইউ সকেটঃ এটি মাদারবোর্ডে যুক্ত থাকে। এটি একটি ইন্টিগ্রেটেড সার্কিট সকেট। এটাতে প্রসেসরটি স্থাপন করা হয়। এটাতে অনেকগুলো পিন থাকে যা প্রসেসরের সাথে মাদারবোর্ডের সংযোগ রক্ষা করে।  শুধু তাই না এটি প্রসেসরটিকে পিনের সাথে চেপে ধরে রাখে। এটাতে স্টীলের তৈরী একটি ঢাকনা থাকে। তবে ঢাকনার মাঝখানটা ফাঁকা।

 

৯। মাদারবোর্ড স্ক্রু হোলঃ মাদারবোর্ডটি কেসিংএর ট্রেতে ঠিকমতো বসানোর জন্য ৬টি ছিদ্র থাকে। এই ছিদ্র দিয়েই স্ক্রু প্রবেশ করিয়ে বোর্ডটিকে আটকানো হয়। খেয়াল করলে দেখবেন ছিদ্রটির চার দিকে সাদা বৃত্ত আঁকা থাকে। ছিদ্রটি অনেকটা ফুলের মতো দোখায়।

 

১০। সিপিইউ ফ্যান কানেকটরঃ সিপিইউর ফ্যানে পাওয়ার সরবরাহের জন্য মাদরবোর্ডে ৩ বা ৪ পিনের একটি সাদা রংয়ের কানেক্টর আছে। এটার নীচে CPU_FAN লেখা থাকে। এটাই সিপিইউ ফ্যান কানেক্টর।

 

ADs by Techtunes ADs

১১। ATX ২৪ পিন মেইন পাওয়ার কানেকটরঃ মাদরবোর্ডে পাওয়ার সরবরাহের জন্য ২৪ বা ২০ পিনের একটি কানেক্টর থাকে। এটা দেখতে সাদা প্লাস্টিকের। এটাই সবচেয়ে বড় পাওয়ার কানেক্টর।

 

১২। ATX ৪ পিন পাওয়ার কানেকটরঃ সিপিইউতে +১২ ভোল্ট পাওয়ার সরবরাহের জন্য এই কানেক্টরটি ব্যবহূত হয়। এটা দেখতে বর্গাকৃতি সাদা বা কাল প্লাস্টিকের হয়।

 

১৩। Front USB কানেকটরঃ দুই সারিতে (৫+৫) ১০ পিনের একটি কানেক্টর লক্ষ্য করুন। খেয়াল করুন এর শেষ দিকে ৯ নং পিনটি খালি। নীচের দিকে লেখা আছে F_USB1 অথবা F_USB2 অথবা F_USB3 অথবা F_USB4 অথবা  F_USB5 অথবা F_USB6। এটাই ইউএসবি কানেক্টর।

 

১৪। Front Audio কানেকটরঃ এটা দেখতে অনেকটা ইউএসবি পোর্টের মতোই ১০ পিনের একটা কানেক্টর। তবে এটাতে ৮ নং পিনটি খালি থাকে। এটার নীচে লেখা থাকে F_AUDIO। এটারও দুই সারিতে (৫+৫) ১০ টি পিন থাকে।

ADs by Techtunes ADs

 

১৫। Front Panel কানেকটরঃ এটা বিভিন্ন মাদরবোর্ডে বিভিন্ন হয়। ফ্রন্ট প্যানেল কানেক্টরটি  সাধারণত ১০ পিনের হয় তবে ১০ নং পিনটি খালি থাকে। আবার কখনো কখনো ২০ পিনের ও হয়। এটার নীচে লেখা থাকে F_PANEL। এটাতে হেডার প্যানেলের মানে কেসিংএর সামনের পাওয়ার বাটন, রিসেট বাটন, পাওয়ার এলইডি, এইচ ডিডি এলইডি কানেকশন দেয়া হয়। এটা কোন পিনে কি কানেকশন দিবেন তা মাদরবোর্ডের ম্যানুয়্যাল দেখে নিন। সাধারণত ১, ৩ HDD LED, ২, ৪ Power LED, ৫, ৭ Reset, ৬, ৮ পাওয়ার স্যুইচ কানেকশন হয়। ১০ নং পিনটি খালি থাকে।

১৬। ফ্লপি ড্রাইভ কানেক্টরঃ  এটা ৩৪ পিনের একটি কানেক্টর। দুই সারিতে ১৭+১৭ পিন থাকে। ফ্লপি ড্রাইভকে কানেক্ট করার জন্য এই কানেক্টরটি ব্যবহার করা হয়। এটা দেখতে অনেকটা আইডিই কানেক্টরের মতো তবে লম্বায় একটু ছোট।

 

 

১৭। SATA পোর্টঃ এই পোর্টটি সাধারণত মাদরবোর্ডের কোনার দিকে থাকে। তবে বিভিন্ন ব্রান্ডের মাদরবোর্ডের বিভিন্ন যায়গায় হতে পারে। এটিদেখতে প্রায় আধা ইঞ্চির মতো লম্বা এবং ইংরেজি L অক্ষরের মতো। এটার নীচে লেখা থাকে SATA0, SATA1, SATA2, SATA3, SATA4 ইত্যাদি। সাতা ড্রাইভের সাথে মাদরবোর্ডের সংযোগ স্থাপনের জন্য এই পোর্ট ব্যবহূত হয়।

 

১৮। IDE পোর্টঃ এটা লম্বা ৪০ পিনের একটি পোর্ট। দুই সারিতে ২০+২০=৪০ পিন থাকে। তবে এত সারিতে একটি পিনের কোনকানেকশন নেই। আইডিই ডিভাইসকে যুক্ত করার জন্য এই পোর্ট ব্যবহূত হয়।

 

১৯। RAM স্লটঃ মাদরবোর্ডে লম্বা পাশাপাশি দুটি বা তিনটি স্লট থাকে। এর দুদিকে দুটি প্লাস্টকের লক থাকে। এটাকে RAM স্লট বলে। স্লটের ভিতরে একটি খাঁজ থাকে। এই খাঁজটি RAM এর প্রকার ভেদে বিভিন্ন স্থানে হতে পারে। আবার একাধিকও হতো পারে। যেমন RD RAM এ খাঁজ থাকে দুটি। আবার DDR-1, DDR-2, DDR-3, DDR-4 ইত্যাদি RAM এ খাঁজ থাকে একটি। তবে এক এক RAM এ এক এক স্থানে খাঁজ থাকে। কাজেই এক RAM এর স্লটে অন্য র্যাম বসানো যায় না।

ADs by Techtunes ADs

২০। AGP স্লটঃ এটা মাদরবোর্ডের প্রায় মাঝামাঝি স্থানে থাকে। এই স্লটের এক পাশে একটি খাঁজ থাকে। সাধারণত খয়েরী রংয়ের হয়ে থাকে। তবে মাদরবোর্ডের ম্যানুফ্যাকচার ভেদে বিভিন্ন রংয়ের হতে পারে। এটার এক দিকে কখনো কখনো একটি লক থাকে। লকটিকে সকেটের আড়াআড়ি ভাবে হালকা টেনে খোলা হয়। সকেটটি দেখতে কেমন হবে তা চিত্রটি দেখে চিনে নিন।

 

২১। সাতা (SATA) ডাটা ক্যাবলঃ এটা দেখতে চ্যাপ্টা এবং লম্বা। এটা প্রায় আধা ইঞ্চি মোটা হয়। সাধারণত লাল রংয়ের হয়ে থাকে। তবে কাল বা হলুদরংয়ের ও হতে পারে। এই ক্যাবলটি মাদরবোর্ডের সাথে এবং অপটিক্যাল ড্রাইভের সাথে আসে। ক্যাবলটির দুই মাথায় কাল রংয়ের দুটি কানেক্টর থাকে। কানেক্টরটিতে কখনো কখনো একটি স্টীলের লক থাকে। SATA হার্ডড্রাইভ অথবা SATA অপটিক্যাল ড্রাইভ থেকে ডাটা মাদরবোর্ডের আদান-প্রদানের জন্য এই ক্যাবলটি ব্যবহার করা হয়। এটা সাধারণত ৭ পিনের হয়ে থাকে।

২২। IDE ডাটা ক্যাবলঃ এটা আইডিই ডিভাইসকে মাদরবোর্ডের সাথে যুক্ত করার জন্য ব্যাবহূত হয়। আইডিই হার্ডড্রাইভ অথবা আইডিই অপটিক্যাল ড্রাইভকে মাদরবোর্ডের সাথে যুক্ত করার জন্য লাগে। এটা ৪০ পিনের একটি ক্যাবল। ক্যাবলটির এক দিকে ক্যাবলের সমান্তরাল ভাবে লাল দাগ টানাথাকে। ভাল করে লক্ষ্য করলে দেখা যায় ক্যাবলটির কানেক্টরে একটি পিনের কোন কানেকশন নেই।

২৩। ফ্লপি ড্রাইভ কানেকটরঃ এটা ৩৪ পিনের একটি কানেক্টর। দুই সারিতে ১৭+১৭ পিন থাকে। ফ্লপি ড্রাইভকে কানেক্ট করার জন্য এই কানেক্টরটি ব্যবহার করা হয়। এটা দেখতে অনেকটা আইডিই কানেক্টরের মতো তবে লম্বায় একটু ছোট।

 

২৪। মাউন্ট সাক্রুঃ এটা দেখতে পিতলের রংয়ের মতো। এটাকে স্পেসার ও বলাহয়। এর মাথা দুটোর এক দিক মেল এবং অন্য দিক ফিমেল। মেল অংশটি কেসিংএর বে-তে লাগানো হয়। আর ফিমেল অংশটি থাকে মাদারবোর্ড এর দিকে।

 

২৫। মাদারবোর্ড স্ক্রুঃ এটা দেখতে স্টীলের মতো। মাথাটি প্লাস আকৃতির কাটা থাকে। এর মাথায় ছাতা বা ওয়াসার  লাগানো থাকে।

 

ADs by Techtunes ADs

 

২৬। হার্ডডিস্ক স্ক্রুঃ এটা দেখতে সাটীলের মতো। মাথাটি মোটা এবং প্লাস আকৃতির কাটা থাকে।

 

২৭। ডিভিডি ড্রাইভ স্ক্রুঃ এটা ও দেখতে স্টীলের মতো। এটা ডিভিডি রম বা রাইটারের সাথে থাকে। আর যদি না থাকে তবে মাদারবোর্ডের স্ক্রু কে বিকল্প হিসেবে কাজে লাগানো যায়। মাথাটি একটু সরু আকৃতির এবং সামান্য লম্বা। মাথায় প্লাস আকৃতির কাটা থাকে।

 

২৮। ব্যাক প্লেটঃ এটা স্টীলের তৈরী আয়তাকার প্লেট। এটাকে Rear I/O প্যানেল ও বলা হয়। এই ব্যাক প্যানেলটি মাদারবোর্ডের পেছনের কি বোর্ড, মাউস, ভিজিএ পোর্ট, অডিও ইন-আউট, মাইক, ইউএসবি পোর্ট, ল্যান পোর্ট ইত্যাদি কানেক্টরের  মাপে ছিদ্র করা থাকে। তাছাড়াও কোন পোর্টটি কিসের তা মার্ক করা থাকে এই প্যানেলে।

আজ কানেকশন পোর্ট সম্পর্কে জানলাম। ইনশাহ্আল্লাহ আগামী পর্বে এসেমব্লিং করা শুরু করে দেব। সবাই সাথেই থাকবেন।

আর কেমন লাগল তা জানাবেন। কমেন্টস করবেন আপনার ইচ্ছা মতো। পরামর্শ থাকলে অবশ্যই দিবেন। আপনাদের প্রয়োজনীয়তা ও উৎসাহ আগামী পর্বগুলো প্রকাশ করতে সাহায্য করবে।

ধন্যবাদ সবাইকে। ভাল থাকবেন।

ADs by Techtunes ADs

ADs by Techtunes ADs
Level 0

আমি আব্দুল আহাদ মিয়া। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 8 বছর 5 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 9 টি টিউন ও 150 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 2 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

I like to work with IT.


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

Level 0

দারুন……………।।

ভাই আপনার মত Teacher থাকলে তো ঘরে ঘরে Computer Hardware Genius পাওয়া যাবে। দেশের কম্পিউটার Education এর মান অনেক উন্নত হবে। আশা করি চালিয়া যাবেন। আপনার ধৈর্য আছে অনেক, আপনাকে আন্তরিকা অভিনন্দন। ভালো থাকবেন।

onek useful tune. priyo te nilam.

সুন্দর !

আাবদুল আহাদ ভাই, আমার একটি লেপটপ এ পানি পড়ার কারনে আর পাওয়ার আসেনা এখন কি করতে হবে একটু বলভেন।

    আপনার লেপটপে কোথায় কতটুকু পানি পড়েছে তা বলেননি। আর লেপটপে পানি পড়ার সময় সেটি অন ছিল নাকি অফ ছিল তাও বলেন নি। তবে পানি পড়ার পর তা অন করা ঠিক হয় নি। পুরু লেপটপটি খুলে তা ভালমতো শুকিয়ে ফিটিংস করে অন করলে কোন সমস্যা হত না। যাই হোক, সম্ভবত লেপটপের মাদারবোর্ডে সমস্যা হয়ে গেছে। এখন নিজে নিজে খোঁচা-খুঁচি না করে ভাল কোন টেকনিশিয়ান দেখান। আর তা না করলে লেপটপটি বাতিল হয়ে যেতে পারে।
    ধন্যবাদ।

Thanks For Share…………………

Level 0

সুন্দর একটি টিউন। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

last tune ami 3 bar akta question korchelam but kaw answer dai nai.jaihok valo hoiche,chaliya jan

ধন্যবাদ ভাই …………..

Level 0

super hoise.but image gulo boro hole valo kore port gulo bojha jeto

Level 0

link er jonno ধন্যবাদ.apnaar jonno sobai hardware mini guru hoe jabo aasa kori

ekta qus ddr 2 ramer mother bord e ddr 1 er ram lagano jabe ki jodi na jay er karon ki akar to eki tai na amk ekjon bolsilo bus jatiyo kisu ja ek na dutor ei carone lagaono jay na eta jodi kule bulten r lagano gelo ki koti hote pare .

    DDR-২ এর মাদার বোর্ডে কখনোই DDR-3 র‍্যাম লাগানো যায় না। কারণ এইসব র‍্যাম সাইজে একই রকম হলেও এদের খাঁজ কিন্তু এক যায়গায় নেই। খাঁজ হল র‍্যামের নর্চ। দেখুন র‍্যামের এক পাশে একটু কাটা আছে। এই কাটা খাঁজটাই হল নর্চ। আর সেজন্যই এক র‍্যামের বোর্ডে অন্য র‍্যাম লাগানো যায় না। DDR-২ ও DDR-3 র‍্যামের মাদারবোর্ড ভিন্ন রকমের হয়। এক র‍্যামের মাদারবোর্ডে অন্য র‍্যাম কখনোই সাপোর্ট করে না। এবার বলি পারফর্মেন্সের কথা- DDR-2 র‍্যামের স্পীড হল মি. ৪০০-১০৬৬ MT/s এবং মে. ৩২০০-৮৫৩৩ MT/s অপরদিকে DDR-3 র‍্যামের স্পীড হলো মি. ৮০০-২১৩৩MT/s এবং মে. ৬৪০০-১৭০৬৬ MT/s । কাজেই DDR-3 র‍্যামের গতি DDR-2 এর তুলনায় অনেক বেশী। আবার DDR-2 র‍্যাম এর অপারেটিং ভোল্টেজ হল- 1.8V আবার DDR-3 এর ক্ষেত্রে অপারেটিং ভোল্টেজ হল 1.3V যা DDR-2 এর থেকে 0.3V কম। এটা একটা বিরাট ফ্যাক্টর। ফলে DDR-3 র‍্যামের পাওয়ার খরচ কম। আর পাওয়ার যত কম খরচ করে পারফরমেন্স ততো বেশী পাওয়া যায়। DDR-3 র‍্যামের ডাটা ট্রান্সফার রেট ১২.৮ GB/s যা DDR-2 র‍্যামের চেয়ে অনেক বেশী।
    মূল কথা হলো DDR-1 র‍্যামের মাদারবোর্ডে কখনোই DDR-2 লাগানো যাবে না। আবার DDR-2 এর মাদারবোর্ডে কখনোই DDR-3 লাগানো যায় না। তবে কিছু কিছু মাদারবোর্ডে পাশা-পাশি দুই প্রকার র‍্যাম স্লট থাকে। দুইপ্রকারের স্লট থাকলেও কাজ করে যেকোন একটা।
    আশাকরি আপনার প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গেছেন।
    ধন্যবাদ।

tnx
waiting 4 nxt

    ভাই আপনি খুব কৃপণ। কাগজ-কলম লাগে না, তবুও এতো সংক্ষেপে লেখেন। কাগজ-কলম লাগলে মনে হয় কিছুই লিখতেন না।

Level New

সুপার টিউন …

Bai jotil hoycha…..

    জটিল হলে তো সমস্যা। সবাই বুঝবে না। কিভাবে করলে সোজা-সাপটা হবে পরামর্শ দিবেন। ধন্যবাদ।

boss , আমি প্রায় ৭মাস আগে বাওসে পাসওয়ার্ড সমস্যা হয়ে ছিল । এক বন্ধুর পরামর্শে মেইন বোর্ডের ব্যাটারী খুলে ফেলি , ব্যাটারীটা খোলা সমসয় হয়তো কোথাও কোন আঘাত লাগছে কিনা জানি না । (লাগতে পারে ) । যায় হোক , সেদিন এর পর থেকে পিসি অন করলে এমন ম্যাসেজ আসে…………(লাল অক্ষরে)

“warning!!! The previous performance of overclocking is failed , and the system is restored to the defaults setting”

তার পার যেটা হয় , f2 ক্লিক করতে বলে , f2 ক্লিক করলে ইউনডোস আসে কিন্তু ঘড়ির টাইম নষ্ট হয়ে যায়। প্রতিদিন যখনই পিসি অন করি এই ওয়ারনিং ম্যাসেজ আসে ।খু্বই বিরক্ত লাগে । নতুন ব্যাটারী লাগিয়ে দেখছি কোন কাজ হয় না । খুবই সমস্যাতে আছি…………………….

[email protected] (মেইল এ আপনার ফোন নাম্বারটি দিলে উপকৃত হবো )

    না বুঝে মাদারবোর্ডে হাত দয়া উচিৎ হয়নি। আর বর্তমানে আমি একটা সমস্যা প্রায়ই দেখছি, সেটা হল পিসি সম্পর্কে সামান্য একটু ধারণা হলেই একে অন্যকে ভয়ানক ভয়ানক পরামর্শ দিয়ে থাকে। আর না বুঝে সেই অল্প বিদ্যা প্রয়োগ করে অনেকেই তার শখের মূল্যবান জিনিসটা নষ্ট করে ফেলছে। যাই হোক হাত যখন দিয়েই ফেলেছেন এখন আর কি করা। আবার হাত দিন।
    পিসি অন করে বায়োসে প্রবেশ করুন। EXIT মেন্যুতে দেখুন লেখা আছে, Load fail safe defaults.। এটা সিলেক্ট করে এন্টার দিন। কনফারমেশনের জন্য ইয়েস দিন। এবার বায়োস সেভ করে বেরিয়ে আসুন। সমাধান না হলে নীচের কাজ অনুসরণ করুন।
    পাওয়ার ক্যাবলটি খুলে ফেলুন যেন পিসিতে কোন পাওয়ার না থাকে। দেখেন মাদারবোর্ডের বায়োস কনফিগারেশনের জামপার আছে। এটা সাধারণত তিন পিনের হয়ে থাকে। নীচে লেখা থাকে BIOS-CONFIG অথবা BIOS_RESET ইত্যাদি। সাধারণত ব্যাটারীর কাছেই থাকে এই জাম্পারটি। খুজে না পেলে মাদারবোর্ডের ম্যানুয়েল দেখুন। নরমালি জাম্পারটির ১,২ পিন দুটি ক্লোজ করা থাকে। ক্লোজ মানে সর্ট। আপনি ১,২ থেকে জাম্পারটি খুলে ২,৩ নং এ লাগান। একটু অপেক্ষা করুন। আবার আগের যায়গায় লাগিয়ে দিন। অর্থাৎ ১,২ ক্লোজ করুন। ২,৩ ক্লোজ থাকলে পিসি অন হবে না। এবার পিসিটা চালু করুন। বায়োসে প্রবেশ করুন। দিন তারিখ ঠিক করে সেভ করে বেরিয়ে আসুন। দেখেন সমাধান হয় কিনা।
    (মাদারবোর্ডে কাজের অভিজ্ঞতা না থাকলে বোর্ডে হাত না দেয়াই ভাল, আর অবশ্যই সবার আগে পাওয়ার ক্যাবলটি খুলে নিন।)
    সমাধান এবার ও না হলে নতুন করে উইন্ডোজ সেট-আপ দিয়ে দেখতে পারেন।
    এবারও সমাধান না হলে খুঁজে দেখুন, মাদারবোর্ডের কোন ক্যাপাসিটার লিকেজ হয়ে গেছে কিনা। লিকেজ হয়ে গেলে তা ভাল এবং অভিজ্ঞ টেকনিশিয়ান দ্বারা সারিয়ে নিতে পারেন।
    কাজ হল কি-না ফিডব্যাক দিবেন অবশ্যই।
    ভাল থাকবেন। ধন্যবাদ।

Level 0

service pack 2 lagale sound na asar karon ki.

    পিসি থেকে সাউন্ড শুনতে হলে সাউন্ড ডিভাইস প্রয়োজন। আর সাউন্ড ডিভাইসকে কার্যকর করার জন্য সেই ডিভাইসের ড্রাইভার প্রয়োজন হয়। জানালা-২ নিজে থেকে সাউন্ড ডিভাইসকে চিনতে পারে না। চিনাতে হলে সাউন্ড ড্রাইভার প্রয়োজন হয়। সে জন্য জানালা-২ দিলে সবসময় সাউন্ড ড্রাইভার দিতে হয়। কিন্তু জানালা-৩, জানালা-৭ ইত্যাদি সাউন্ড ডিভাইসকে নিজে থেকে চিনতে পারে। সে জন্য এগুলোতে আলাদা কোন ড্রাইভার লাগে না। অটো পেয়ে যায়। তবে কখনো কখনো এইসকল জানালাতেও ড্রাইভার লাগতে পারে।।

Level New

সুপার টিউন

Level 0

ভাইয়া আমার ডেস্কটপ পিসিটার সিস্টেম ইউনিটের ভিতর থেকে ১০/১৫ দিন ধরে মাঝে মাঝে কেমন জেন একটা কিট কিট আওয়াজ হচ্ছে । খুব চিন্তায় আছি মনে মাঝে মাঝে হয় হার্ডডিস্কটা নরছে । তারাতারি এর একটা সামাধান দেন ভাই ।

    আজনার সিস্টেম ইউনিটটা খুলে ভাল করে লক্ষ্য করুন আসলে কোথায় শব্দটি হচ্ছে। অনেক সময় সিপিইউর কুলার ফ্যানের সাথে ক্যাবলের ঘর্ষণের ফলে এ রকম শব্দ হয়ে থাকে। যদি তাই হয় তবে ক্যাবলটি সরিয়ে রাখুন।
    আর তা না হলে আপনার হার্ডডিস্কে কান পেতে শুনুন সেখানে শব্দটি হচ্ছে কি না। এমনিতে হার্ডডিস্ক চলা অবস্থায় ঝিরি-ঝিরি শব্দ হয়। যদি এরকম ঝিরি-ঝিরি শব্দ হয়ে থাকে তবে কোন সমস্যা নাই। এটা স্বাভাবিক ঘটনা। আর যদি সেখানে কট কট শব্দ হয়, তবে লক্ষণ মোটেও ভাল না। খুব শীগগিরই আপনাকে নতুন হার্ডডিস্ক কেনার প্রয়োজন হতে পারে।
    তবে আমার মনে হচ্ছে পিসি অন করলে সামান্য একটু পরেই হার্ডডিস্কে কট-কট শব্দ হচ্ছে। মনে হয় হার্ডিডস্কের ভতরে কোন কিছুদিয়ে জোরে-জোরে টোকা দেয়া হচ্ছে। এটার কারণ হল আপনার হার্ডডিস্কের সিলিন্ডারটি যথা স্থানে চলাচল করতে পারছে না। এরকম হলে আমার পরামর্শ- অতি শীঘ্রই আপনার হার্ডডিস্কটির ব্যক-আপ নিয়ে নেন। কারণ যে কোন সময়ই আপনার হার্ডডিস্কটি বসে যেতে পারে।
    কাজ করতে পারলেন কিনা জানাবেন।
    ধন্যবাদ।

আমার পিসিতে একটি সমস্যা দেখা দিয়েছে । মাঝে মাঝে পিসি চালু করার পর তিন-চার সেকেন্ড মত আল টাল জলে তারপর স্টপ । অবশ্য ক্যাবল খুলে আবার লাগালে ঠিক হয়ে যায় । কি সমস্যা যদি বলতেন ?

    আপনার অভিযোগটি বুঝতে পারি নাই। সুন্দর করে বিস্তারিত লিখতে হবে। কারণ একটা সমস্যা অনেকগুলো করণে হতে পারে। সমস্যা সংক্ষেপে বললে কি কারণে সমস্যাটি হচ্ছে তা বুঝা যায় না। সে ক্ষেত্রে অনুমানের উপর ভিত্তি করে সমাধান দিলে কাজে নাও আসতে পারে।
    ধন্যবাদ ভাই।

Apnar tune ta asolei anek sundor hoyeche.chalia jan. Tobe vy apnar kache akta sahajjo chachilam,ami amar graphics card ta ke overclock korte chai.aita nia age anek sunechi kintu prathomik kono dharona nai.apni jodi pura process ta aktu janan then anek upokar hoy.

    কাজটা একটু জটিল তার পরও বলছি। তবে আমার পরামর্শ হলো আপনার হার্ডওয়্যার সম্পর্কে ভাল ধারণা না থাকলে নিজে করতে যাবেন না।
    প্রথমে আপনার গ্রাফিক্স কার্ডটি মাদার বোর্ডে ইন্সটল করে নিন। তারপর তার ড্রাইভার ইন্সটল করে নিন। এবার একটি PowerStrip বা ওভার ক্লকিং সফ্টওয়্যার লাগবে। এটা পাবেন
    এখানে-http://www.hardwaresecrets.com/page/download_overclock
    আপনার গ্রাফিক্স কার্ডের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ সফ্টওয়্যারটি ডাউনলোড করে নিন। এবার এটা ইন্সটল করে পিসি রিস্টার্ট দিন।
    এখন- আপনার টাস্কবারে সিস্টম ক্লকের পাশে মনিটরের ছবির মতো একটি আইকন পাবেন। এটাতে রাইট ক্লিক করুন। তারপর সিলেক্ট করুন-Performance Profiles। তারপর Configure এ ক্লিক করুন। দেখবেন নতুন একটি উইনডো আসবে। এখানে GPU ক্লক ও Memory ক্লক স্পিড দেখাবে। ডান দিকের স্লাইডার ব্যবহার করে ক্লক স্পীড বাড়াতে বা কমাতে পারবেন। আপনার কাঙ্খিত স্পীড সিলেক্ট করে পিসি রির্স্টার্ট দিন। এবার কোন থ্রিডি গেমস চালিয়ে দেখুন কোন পরিবর্তন আসছে কি না। যদি গেমস চলায় কোন সমস্যা দেখায় তবে পুনরায় GPU ক্লকিং সেট করে রিস্টার্ট দিয়ে দেখুন। ধন্যবাদ।
    কাজ হলে জানাবেন। সমস্যা থাকেলেও জানাবেন।

Level 0

vai apnar tune onek nice hoaisa. pc on korar somoi F1 press korta hoi ata ki janno ar time thik thaka na ata ki cmos battery ar janno na onno karon

    ভাই আপনি ঠিক ধরেছেন। সাধারণত সিমস ব্যাটারীর কারণে F1 চাপতে বলে বায়োস। এ ছাড়াও আরো কারণ থাকে। যেমন- আপনার পিসিতে যদি ফ্লপি ড্রাইভ লাগানো থাকে এবং এর ক্যাবলটি যদি উল্টো ভাবে লাগানো থাকে তবে এরকম F1 চাপতে বলবে। আবার বায়োসে যদি ফার্স্ট বুট হিসেবে ফ্লপি ড্রাইভ সিলেক্ট করা থাকে তখনো কিন্তু F1 চাপতে বলবে।
    এবার আসি সমাধানের পালা-
    আপনার পিসির টাইম ঠিক করে দেয়ার পরও যদি ঠিক না থাকে তবে বুঝতে হবে সিমস ব্যাটারীর চার্জ শেষ। সে ক্ষেত্রে একটি নতুন ব্যাটারী লাগিয়ে দেখতে পারেন সমাধান হয়ে যাবে।
    সিস্টেমটি খুলে দেখুন ফ্লপি ড্রাইভের ক্যাবলটি উল্টো ভাবে লাগানো আছে কিনা। যদি উল্টো ভাবে লাগানো থাকে তবে তা সঠিক ভাবে লাগিয়ে দেখুন সমাধান হয়ে যাবে।
    বায়োসে প্রবেশ করে দেখুন ফার্স্ট বুট হিসেবে ফ্লপি ড্রাইভ সিলেক্ট করা আছে কিনা। থাকলে ফার্স্ট বুট হার্ডডিস্ক করে দিন। সমাধান হয়ে যাবে।
    আশাকরি লেখাটা আপনার কাজে আসবে। সমাধান হয়ে গেলে জানাবেন।
    ধন্যবাদ। ভাল থাকুন।

Level 0

vai apnaka donnobad . ami apnar moto hadrware shikta chi .
ami gazipur thaki . gazipur ar kasa kothi valo shikta parbo amaka akto gide koran please…

    ভাই আমি প্রায় ১২ থেকে ১৪টি সেন্টার থেকে হার্ডওয়্যার ট্রেনিং নিয়েছি। কিন্তু আমার মনে হয় এগুলো পর্যাপ্ত নয়। কারণ ট্রেনিং সেন্টারগুলোতে হার্ডওয়্যার সম্পর্কে তেমন ভাল করে শেখানোর ব্যবস্থা নাই। সবচেয়ে ভাল হয় ট্রেনিং সেন্টারের পাশাপাশি কোন সার্ভিসিং সেন্টারে কাজ শিখলে। কারণ এমন অনেক সমস্যা আছে যার সমাধান কোন বই কিংবা টিচারের জানা নাই। কিন্তু সেন্টারে যারা সার্ভিসিং কাজ করে তারা ভালভাবে তার সমাধান করতে পারে। আর ব্যাপারটা যেহেতু টেকনিক্যাল কাজেই ব্যাবহারিক কাজের কোন বিকল্প নাই। যত বেশি কাজ করবেন ততো বেশি শিখবেন।
    কাজেই আমার পরামর্শ – তাত্ত্বিকের পাশাপাশি ব্যবহারিক কাজে লেগে যান। অভিজ্ঞতাই হল মূল জিনিস।

Level 0

সাউন্ড ডিভাইসকে চেনার জন্য এখন কি করব একতু বিস্তারিত জানাবেন।
ধন্যবাদ ভাই

    আপনার অপারেটিং সিস্টেম কি তা বলেন নি। অপারেটিং সিস্টেম না বললে সমাধান দেয়া কঠিন। যাই হোক আপনার মাদারবোর্ডের ড্রাইভার সিডিটা থেকে সাউন্ড ড্রাইভার ইন্সটল করে নিন। সাউন্ড পেয়ে বাপ ডাকবে। আর তাও যদি না পায় তবে আপনার মাদারবোর্ডের মডেল কি তা আমাকে জানান। সমাধান দিয়ে দিব।
    ধন্যবাদ।

Level 0

আহাদ ভাই , আপনাকে অনেক ধন্যবাদ, হার্ডওয়ার নিয়ে টিউন করার জন্য, তবে ভাই মাঝ পথে বন্ধ করে দিয়েন না ভাই,

আমি হার্ডওয়ার সম্পর্কে জানতে পারতেছি আপনার এই টিউন থেকে

Ahad vai, ami techtunes er ekjon irregular reader. Tobe TT amar favorite site gular ekti. apnar tune pore amar khubi valo laglo. ekta chchoto problem niye kotha bolte chai apnar sathe. amar laptop e jokhon kono multimedia file chalai mane video or audio, tokhon file ta ektu atke theke abar chola suru kore. atkanor somoita .5 or 1 sec. ami mone koresilam player er problem. kintu change koreu kono lav hoi na. pls ekta solution diben.

    আপনার ল্যাপটপের অপারেটিং সিস্টেম কি তা বলেন নি। তবে আমার মনে হয় আপনার ল্যাপটপে ভিজিএ ড্রাইভার দেয়া নাই। অথবা দেয়া থাকলেও তা সঠিকভাবে কাজ করছে না। সে ক্ষেত্রে ভিজিএ ড্রাইভারটি নতুন করে ইন্সটল করে নিন।
    এর পরেও কাজ না হলে জানালা নতুন করে সেটআপ দিন। তারপর ড্রাইভার সেটআপ দিন। আশা করি সমাধান হয়ে যাবে। এতেও কাজ না হলে জানাবেন।
    ধন্যবাদ।

courteous

    ভাই এক শব্দে কমেন্টস করলে অর্থটা ঠিক বুঝা যায় না। ডিটেইলস কমেন্টস করবেন। তার পরও কমেন্টস করার জন্য ধন্যবাদ।

পরের লেখাগুলোর জন্য খুবই আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় আছি।

    ধন্যবাদ অপেক্ষায় থাকার জন্য। আমিও চেষ্টা করব চালিয়ে যেতে। তবে আপনাদের অনুপ্রেরণা আমাকে সাহস দিবে এগিয়ে যাবার।

Level New

টিউন খুব ভাল লেগেছে। সবচেয়ে ভাল লাগছে আপনি যেভাবে সবার প্রশ্নর জবাব দিচ্ছেন।
আশাকরি টিউন ধারাবাহিক ভাবে পাবো।

    ভাই চেষ্টা করছি সবার সাথে একটু সেয়ার করতে। আর আমার দ্বারা যদি কারো উপকার হয় তবে মন্দ কি?

thank you very much for replying. Ami Windows 7 use kori. Laptop model Dell Inspiron 1545. Amar windows ta original. Magar Kono driver cd nai. ei model er vga driver kothai pete pari bolben ki vai?

Vai apnake as0ngkho dhonnobad. .apnar step onujai jotha j0tho vabe overclock korte perechi 😀 Arekta help chacchilam apnar kache, ami anek din dhore 160gb ide port er hard disk bebohar kori.koyek din pore ami akta 500gb sata hard disk kinbo.akhon ami jante chacchi ami jodi sata port e 500gb hard disk ta config kori tahole ki plug and play te automatic bios e hard disk take detect korbe? Naki bios er config change kora lagbe?aktu kosto kore reply dile anek upokar hoy 😀

    ধন্যবাদ
    আপনার মাদারবোর্ড কি এবং তার মডেল কত তা জানান। আপনার মাদারবোর্ডের বায়োস কি তাও জানাতে হবে।তার পর বাকীটা বলছি।
    থাক বলেই দিচ্ছি। আপনি যদি সাতা এবং আইডিই দুটো হার্ডডিস্ক ব্যবহার করেন এবং মাস্টার হিসেবে আইডিই হার্ডডিস্কটি রাখেন তবে অবশ্যই আপনাকে বায়োস থেকে কনফিগার করে নিতে হবে। তারপর বায়োস সেভ করে নিতে হবে। নইলে আপনার পিসি কোন মতেই রান করবে না। কনফিগার করার পদ্ধতি নিশ্চই জানা আছে। আর না জানা থাকলে বায়োসে গুতা-গুতি না করাটাই ভাল। কারণ উল্টো-পাল্টা কনফিগারে অনেকসময় মাদারবোর্ড অকেজো হয়ে যেতে পারে। সেজন্য অভিজ্ঞ কাউকে দিয়ে কাজটা করিয়ে নিবেন। আর তেমন কাউকে না পেলে জানাবেন। ডিটেইলস জানাব।
    এতো ঝামেলা না করতে চাইলে সাতা হার্ডডিস্কে উইন্ডোস সেটআপ দিন। কোন কনফিগার লাগবে না। পিসি ডাইরেক্ট রান করবে।
    কোন সমস্যা থাকলে জানাবেন। ধন্যবাদ।

Level 0

good . good ……………………..

Level 0

অপারেটিং সিস্টেম হল উইন্ডোজ এক্সপি ।মাদারবোর্ডের মডেল হল P5GC-MX/1333

    আপনি মাদারবোর্ডের মডেল জানিয়েছেন কিন্তু কোন ব্র্যান্ড/কোম্পানী তা জানান নি। সবসময় আগে ব্র্যান্ড তার পর মডেল বলতে হয়। আর মডেল দেখে কখনোই ব্র্যান্ড চিনা যায় না। একই মডেল বিভিন্ন ব্র্যান্ডের হতে পারে। সে ক্ষেত্রে সঠিক সফ্টয়্যারটি খুঁজে বের করা সম্ভব হয় না। যাই হোক মডেল দেখে মনে হচ্ছে আপনার মাদারবোর্ডটি আসুস ব্র্যান্ডের। যদি Motherboard টি ASUS এর হয় তবে নীচের পদ্ধতিতে কাজ করুন, আশা করি কাজ হবে। আর অন্য ব্র্যান্ডের হলে দয়া করে তা জানাবেন।
    দেখুন আপনার টাস্ক বারের ডান দিকে ভিজিএ আইকন দেখা যায় কিনা। এ্টা দেখতে চার কোনা এবং নীল রংয়ের । যদি না থাকে তবে ধরে নিতে হবে আপনার পিসিতে ভিজিএ ড্রাইভারটি ইন্সটল দেয়া নাই। সে ক্ষেত্রে নীচের লিংক থেকে প্রথমে অপারেটিং সিস্টেম(OS) সিলেক্ট করুন। এবার নীচের দিকে দেখুন AUDIO লেখা আছে। এতে ক্লিক করুন। সেখান থেকে Version V51005904_V6015904 টি Global এ ক্লিক করে ডাউনলোড করে নিন।
    এবার এই সফ্টয়্যারটি সেটআপ দিয়ে পিসি রিস্টার্ট দিন। কাজ হয়ে যাবে।
    আর যদি উপরে বর্ণিত আইকনটি দেখা যায় তার পরও ভিজিএ সমস্যা করে তবে জানালা নতুন করে সেটআপ দিয়ে উপরোক্ত ড্রাইভারটি ইন্সটল দিন। আশাকরি সমাধান হয়ে যাবে।
    এর পরও কাজ না হলে জানাবেন।
    ধন্যবাদ।

    আপনি মাদারবোর্ডের মডেল জানিয়েছেন কিন্তু কোন ব্র্যান্ড/কোম্পানী তা জানান নি। সবসময় আগে ব্র্যান্ড তার পর মডেল বলতে হয়। আর মডেল দেখে কখনোই ব্র্যান্ড চিনা যায় না। একই মডেল বিভিন্ন ব্র্যান্ডের হতে পারে। সে ক্ষেত্রে সঠিক সফ্টয়্যারটি খুঁজে বের করা সম্ভব হয় না। যাই হোক মডেল দেখে মনে হচ্ছে আপনার মাদারবোর্ডটি আসুস ব্র্যান্ডের। যদি Motherboard টি ASUS এর হয় তবে নীচের পদ্ধতিতে কাজ করুন, আশা করি কাজ হবে। আর অন্য ব্র্যান্ডের হলে দয়া করে তা জানাবেন।
    দেখুন আপনার টাস্ক বারের ডান দিকে ভিজিএ আইকন দেখা যায় কিনা। এ্টা দেখতে চার কোনা এবং নীল রংয়ের । যদি না থাকে তবে ধরে নিতে হবে আপনার পিসিতে ভিজিএ ড্রাইভারটি ইন্সটল দেয়া নাই। সে ক্ষেত্রে নীচের লিংক থেকে প্রথমে অপারেটিং সিস্টেম(OS) সিলেক্ট করুন। এবার নীচের দিকে দেখুন AUDIO লেখা আছে। এতে ক্লিক করুন। সেখান থেকে Version V51005904_V6015904 টি Global এ ক্লিক করে ডাউনলোড করে নিন।
    এবার এই সফ্টয়্যারটি সেটআপ দিয়ে পিসি রিস্টার্ট দিন। কাজ হয়ে যাবে।
    আর যদি উপরে বর্ণিত আইকনটি দেখা যায় তার পরও ভিজিএ সমস্যা করে তবে জানালা নতুন করে সেটআপ দিয়ে উপরোক্ত ড্রাইভারটি ইন্সটল দিন। আশাকরি সমাধান হয়ে যাবে।
    এর পরও কাজ না হলে জানাবেন।
    লিঙ্কটিঃ http://support.asus.com/download.aspx?slanguage=en-us&m=p5gc-mx%2f1333
    ধন্যবাদ।

      Typing mistake এর কারণে একটু ভুল হয়েছে। আমি উপরে যেটা বর্ণনা করেছি তা ভিজিএ। আসলে আইকনটি হবে একটা স্পীকারের। লিঙ্ক এবং সফ্টয়্যারটি সহ বাকি সব ঠিক আছে। কাজের ধারাবাহিকতাও ঠিক আছে। কোন সমস্যা হলে জানাবেন।

অসাধারন টিউন,আপনার টিউন থেকে অনেক কিছু জানলাম ভাল ভাবে যা আগে এত বেশী জানা ছিলনা।আশা করি পরবর্তি পর্বও অনেক ভাল হবে,আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ সুন্দর টিউনটির জন্য।

    ধন্যবাদ। এখন থেকে খেয়াল রাখবেন এই টিউনে। আমি চেষ্টা করব আরো ভালো কিছু দেয়ার জন্য। নিচের ব্লগে আরো কিছু পেতে পারেন।
    http://pchelpmate.blogspot.com

Level 0

আহাদ ভাই আপনাকে পায়ে ধরে সালাম করতে ইচ্ছে করছে। সবার সমস্যাগুলোর এত যত্ন করে সমাধান দেয়ার চেষ্টা করছেন যা সত্যিই প্রশংসনীয়।
আপনার সাথে সরাসরি যোগাযোগ (mobile, e-mail or Facebook) করার কোন ব্যবস্থা আছে কি?

    ভাই আপনাকে ধন্যবাদ। ভাই আপনি তো পায়ে ধরে ছালাম করে আমাকে আপনার কাছে ঋণী করে ফেলেছেন। যাই হোক পায়ে ধরে ছালাম করার কিচ্ছু নাই। আমার সাধ্যমতো আমি চেষ্টা করি। এমনিতে আমি সারাদিন খুব ব্যাস্ত থাকি। এক সাথে তিনটি জব করি। যেটুকু ফ্রি সময় পাই, নেট-এ সময় দিই। এর মাঝে টিউন বন্ধুদের সমস্যাগুলো খুব গুরুত্বের সাথে দেখি। কারণ আমি দেখেছি হার্ডোয়্যার সমস্যা নিয়ে অনেকেই খুব ভোগান্তিতে থাকেন। সঠিক সমাধানের অভাবে অনেই তার মূল্যবান পিসিটা নষ্ট করে ফেলে। তাই তাদের এই কষ্টের কথা ভেবে সমস্যাগুলোর সমাধান দেয়ার চেষ্টা করি। জানি না কার কতটুকু কাজে লাগে। যাই হোক কারো কাজে লাগলে প্রচেষ্টা সার্থক মনে করব। আর আমার জন্য আপনারা সবাই দোয়া করবেন। আমার ফেসবুক আইডি http://www.facebook.com/ahadmia
    E-mail: [email protected]
    Mobile No: টা আপাততো দিলাম না। অন্য সময় দেব ইনশাহ্‌আল্লাহ।
    আবারো ধন্যবাদ। ভাল থাকবেন।

Level 0

আমার কম্পিউটার এ on করার সময় F1 দিতে হয়। সময় ও তারিখ ঠিক থাকে না। আমি Battery পালটানোর পরেও একি problem দেখা দিচ্ছে। এখন আমি কি করব?

Level 0

ভাইয়া আর একটা কথা আমি আমার processor change করেছিলাম।intel dual core change করে core 2 duo লাগিএছিলাম তারপর তিন মাস pc on করা হইনি । এরপর pc on করার পর এই problem দেখা দিছে।আমার মাদারবোর্ড Foxconn G31

    প্রসেসর পরিবর্তন করায় এ সমস্যা হয়নি। সমস্যাটা আপনার মাদারবোর্ডের ব্যাটারীতে। নতুন ব্যাটারীতে চার্জ থাকে কিনা তা চেক করে দেখুন। চেক করার জন্য ব্যাটারীটা খুলে তা আপনার জিহ্বায় লাগিয়ে দেখুন ঝিরঝির করে কিনা। ঝিরঝির না করলে বুঝতে হবে চার্জ নাই। সে ক্ষেত্রে নতুন ও ভাল ব্যাটারী লাগিয়ে দেখতে হবে। আপনার পিসিতে ফ্লপি ড্রাইভ লাগানো আছে কিনা তা বলেন নি। অনেক সময় ফ্লপি ড্রাইভ লাগানো থাকলে এরকম সমস্যা হতে পারে। ফ্লপি ড্রাইভের কানেকশন খুলে দেখুন। এতে কাজ না হলে আপনার মাদারবোর্ডের বায়োস রিসেট করে দেখুন। আশাকরি সমাধান হয়ে যাবে।

সত্যিই সুন্দর হয়েছে চালিয়ে যান।

Level 0

Allah help him who help the other.
Abdul Ahad vie carry on …………………….

Level 0

vaia amer pc te kono floppy drive lagoano nai ami battery check koresi baterryte kono charge hoi na er ami tin thaka four ber new battery laganor poro ei problem thakai gise.bious kivabe reset dibo ami pls give me a perfect solution.

সুন্দর একটি টিউন। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

ভাইজান সবাই আপনাকে প্রশ্ন করে বলে আমিও একটা প্রশ্ন না করে থাকতে পারলামনা। যদি কষ্ট করে জবাব দিতেন তাহলে খুবই উপকৃত হতাম।

ভাই আমার সমস্যাটা খুব অদ্ভুত।বিস্তারিত কনফিগারেশন বলছি
প্রসেসরঃকোর টু ডুয়ো
র‌্যামঃ ২ জিবি
সমস্যা হলো আমার পিসি তে তিনটা OS লোড করা ছিল। XP, 7 আর রেড হ্যাট লিনাক্স। তো একদিন হলো কি আমার পিসির পাওয়ার সাপ্লাই পুরে গেল। এরপর আমি নিজেই A.Techএর একটা পাওয়ার সাপ্লাই লাগিয়ে নিলাম।প্রথমবার একটু সমস্যা হলেও (যেমন ঊইন্ডোজ রিলোডিং করলো হার্ডওয়্যার চেঞ্জ এর জন্য) পরে ঠিকমতই সবগুলো OS কাজ করতো। এর মাস দুয়েক পর আবার পিসির পাওয়ার সাপ্লাই সমস্যা করে পাওয়ার পাইনা। তখন আবার নতুন পাওয়ার সাপ্লাই লাগাই এবং আগের মতন কাজ করে। এর মাস দুয়েক পর আবার পিসির পাওয়ার সাপ্লাই সমস্যা করে পাওয়ার পাইনা। তখন আর নতুন পাওয়ার সাপ্লাই লাগাইনি এভাবেই ছিল। 15-20 দিন পর আপনা আপনি ই আবার পাওয়ার পাই আর একটা অদ্ভুত সমস্যা পাই তাহলো XP আর 7 ওপেন হয়না কিন্তু লিনাক্স যথারীতি কাজ করে। তো মনে হলো ঊইন্ডোজ এর সমস্যা কিন্তু ঊইন্ডোজ নতুন করে সেট আপ দিতে চাই দিতে পারিনা। তখন মনে হলো হার্ড ডিস্কের সমস্যা। তখন হার্ড ডিস্ক খুলে অন্য মেশিনে লাগিয়ে ঊইন্ডোজ নতুন করে সেট আপ দেই এবং ঐ মেশিনে খুব ভাল ভাবে রান করে। বাসায় নিয়ে আমার মেশিনে লাগানোর পর আর চলেনা তখন মনে হলো র‌্যামের সমস্যা , র‌্যাম অন্য মেশিনে লাগিয়ে দেখি র‌্যাম ভাল। তখন আর উপায় না দেখে নিয়ে যাই ফ্লোরার সার্ভিস সেন্টারে । তিন দিন পর তারা আমার মেশিন ডেলিভারী দেয় আর বলে যে ঊইন্ডোজ এর সমস্যা ছিল। আমি নিজে মেশিন রান করে নিয়ে যাই, কিন্তু বাসায় নেয়ার পর আর পাওয়ার পায়না।তখন আমার মনে হলো আমার বাসার পাওয়ার এর সমস্যা, তাই আমি পাশে অন্য বাসায় যেখানে তার পিসি চলছিল সেখানে লাগাই সেখানেও একই সমস্যা পাওয়ার পায়না।পাওয়ার পায়না মানে ২-৩ সেকেন্ড পেয়েই চলে যায়। আবার নিয়ে আসি ফ্লোরায় এখানে নিয়ে আসার পর দেখি কোন সমস্যা নাই।খুব ভাল চলছে। বাসায় নিয়ে যাওয়ার পর আবার একই সমস্যা পাওয়ার পায়না ।
এখন আমি কি করতে পারি।
উল্লেখ্য আমি UPS ব্যাবহার করি এবং আমার সকল কেবল, মাল্টিপ্লাগ চেঞ্জ করেও দেখেছি কোন কাজ হয়না।

Level 0

Happy New Year dada.. আমি অনেক দিন ধরেই এমন একটি ব্লগ খুঁজছিলাম। আমি branded ZENITH pc use করি। সেখানে MSI motherboard লাগানো আছে। একদিন সবগুলো connection খুলেছিলাম, কিন্তূ এখন আর সেগুলো লাগাতে পারছিনা। আমার কাছে usser manual ও নাই। তাই যদি আপনি একটা MANNUAL দিয়ে সাহায্য করেন উপকার হবে। এখণ আমার computer বন্ধ অবস্থায় পরে আছে। pl help me. my id is [email protected]

কম্পিউটার নিয়ে এই টিউনটি খুবই ভালো হয়েছে…..এটি কাজের টিউন…………. শেয়ার করার জন্ন আপনাকে ধন্নবাদ…

ATX ৪ পিন পাওয়ার কেবলস, ৪ পিন প্যারিফেরাল পাওয়ার ক্যাবল এই ২টা image show করে না। please re attach.

Level New

apner blog ta open hoyna keno?

Level New

🙂

Level New

😉

অসাধারন টিউন.ধন্যবাদ্…..Amar akta problem ar somodan dila khusi hobo…..amar pc ta on korar por keybord ta tik moto kaj kora na..sudu num lock on hoya thaka off o hoy na..keybord ta kaj kora na windos dila kisudin kora abar ak e problem dakha day……Problem tar somadan dila khusi hotam………